নির্যাতিত উইঘুর মুসলিমদের ব্যাপারে এরদোগানের মন্তব্য-সেখানের জনগণ শান্তিতে আছে!

0
327
২রা জুলাই ২০১৯, চীনের বেইজিংয়ে ‘জনতার গ্রেট হল’ এ এক বৈঠকে যোগদান করেছে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এবং তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগান। [ফটো: রয়টার্স]

গত ২রা জুলাই মঙ্গলবার চীনের প্রেসিডেন্টের সাথে এক বৈঠকে জিনজিয়াংয়ের(পূর্ব তুর্কিস্তান) মানুষ সুখে আছেন বলে মন্তব্য করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান। চীনা সরকারী মিডিয়া এবং বার্তাসংস্থা রয়টার্সের বরাত দিয়ে এ খবর জানিয়েছে ডকুমেন্টিং অপ্রেশন এগেইন্সট মুসলিমস্

চীনের সরকারী মিডিয়ার সূত্র অনুযায়ী পূর্ব তুর্কিস্তান নিয়ে সরকারী মিডিয়া কর্তৃক এরদোগানের বক্তব্যের অনুবাদ:

প্রকৃত সত্য হচ্ছে যে, জিঝিয়াং (পূর্ব তুর্কিস্তান) এর জনগণ এখানে চীনের উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির কারণে সুখ-স্বাচ্ছন্দ্যের সাথে বসবাস করছে।”

তুরস্ক কোনো ব্যক্তিকে তুরস্ক-চীনের  সু-সম্পর্কে ফাটল ও বিরোধ উস্কে দেওয়ার অনুমতি দিবে না। তুরস্ক দৃঢ়ভাবে উগ্রবাদের বিরোধীতা করে এবং চীন ও তুরস্কের মাঝে পারস্পরিক কুটনৈতিক বিশ্বাস ও সমঝোতা বৃদ্ধি এবং নিরাপত্তার ব্যাপারে পারস্পারিক সহযোগীতাকে আরও শক্তিশালী করার আশা করছে।”

রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে যে, শি জিনপিং এরদোগানকে বলেছে, সন্ত্রাসবাদ বিরোধী যৌথ অভিযানকে আরও শক্তিশালী করতে উভয় দেশের উচিত  সন্ত্রাসবাদ বিরোধী অভিযানে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা।

উল্লেখ্য, বর্তমানে চীন সন্ত্রাসবাদের মিথ্যা অভিযোগ এনে পূর্ব তুর্কিস্তানের বিশ লক্ষের অধিক মুসলিমকে বন্দী করে রেখেছে। ‘পুনঃশিক্ষা’ এর নামে কমিউনিস্ট চীনারা মুসলিমদেরকে তাদের ধর্ম ইসলাম পরিত্যাগ করতে বাধ্য করছে। মুসলিম নারীদেরকে বাধ্য করা হয়েছে চীনা কাফেরদের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতে। এছাড়াও, দেশটিতে এ পর্যন্ত অনেক মসজিদকে ধ্বংস করা হয়েছে। কিন্তু নামধারী মুসলিম নেতারা এ জুলুমের বিরুদ্ধে মুখ খোলাতো দূরের কথা বরং নির্লজ্জভাবে জালিম চীনের পক্ষ নিচ্ছে।

Facebook Comments

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন