ক্রুসেডার আমেরিকা ও আফগান বাহিনীর হাতেই বেশি ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন আফগান জনতা!

0
373

চলতি বছরের প্রথম ৬ মাসে অর্থাৎ জানুয়ারী-জুন মাস পর্যন্ত ক্রুসেডার আমেরিকা ও তাদের গোলাম আফগান মুরতাদ বাহিনীর অমানবিক বোমা হামলা ও স্থলপথের হামলায় হতাহতের শিকার হয়েছেন ২৪৬৩ জন নিরপরাধ আফগান জনসাধারণ।

পাহাড়ঘেরা দরিদ্র-পীড়িত ও যুদ্ধ কবলিত এক দেশ আফগানিস্তান। রাশিয়ার বর্বরোচিত হামলার শিকার হয়ে দেশটি হারায় ভূগর্ভস্থলে থাকা বহু সম্পত্তি, হারাতে হয় মাটির উর্বরতা, জীবন দিতে হয় প্রায় কয়েক লক্ষ আফগান মুসলিমকে। আবার এমনই এক রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের রেশ কেটে না উঠতেই আমেরিকা ও ন্যাটো নামক আরেক ক্রুসেডার বাহিনী হায়েনার মত ঝাঁপিয়ে পড়ে দরিদ্র-পীড়িত এই দেশটির উপর। ২০০১ সালে শুরু হওয়া এই ক্রুসেড যুদ্ধ আজ ২০১৯ সালেও চলছে। আকাশ ও স্থলপথে চালানো হয় অমানবিক হামলা, আবারো নব্য ক্রুসেডারদের গণহত্যার শিকার হয় দেশটির মুসলিম জনসাধারণ। আর এই গণহত্যায় ক্রুসেডার আমেরিকা ও ন্যাটো জোটের সাথে অংশগ্রহণ করে স্বদেশীয় গাদ্দার মুরতাদ সামরিক বাহিনী, যারা সামান্য অর্থের বিনিময়ে নিজেদের ঈমান ও ভূমিকে বিক্রি করে দিয়েছে।

চলতি ২০১৯ সালের প্রথম ৬ মাসেও চলে এই গণহত্যা, ইমারতে ইসলামিয়ার একটি টিম গত ৬ মাসে তাদের নিয়ন্ত্রিত এলাকাগুলোতে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা ও গণহত্যার শিকার হওয়া মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়ে সাধারণ মুসলিমদের জান-মালের ক্ষয়ক্ষতির উপর একটি রিপোর্ট তৈরী করেন।
উক্ত রিপোর্টে দেখা যায় গত ৬ মাসে আফগানিস্তান জুড়ে সাধারণ ও নিরপরাধ মানুষের উপর প্রায় ৯৩২টি হামলার ঘটনা ঘটে। যার মধ্য হতে ৮৫২টি ঘটনাই ঘটে ক্রুসেডার আমেরিকা ও তাদের গোলাম স্বদেশীয় মুরতাদ আফগান বাহিনীর দ্বারা। এছাড়া বাকি ৭৬ হামলার ঘটনা ঘটে খারেজী গোষ্ঠী আইএস ও কিছু অজ্ঞাত লোকের দ্বারা।

গত ৬ মাসে ৯৩২ ঘটে যাওয়া হামলার ঘটনায় হতাহতের শিকার হন প্রায় ২৪৬৩ জন নিরপরাধ আফগান জনসাধারণ। যার মধ্য হতে শাহাদাত বরণ করেন ১৩৯৯ জন এবং আহত হন ১০৬৫ জন।

১৩৯৯ জন শহিদের মধ্যে ১৩৭৬ জনই (৯২%) শাহাদত বরণ করেন ক্রুসেডার আমেরিকা ও তাদের গোলাম আফগান মুরতাদ বাহিনীর হামলায়। এছাড়া বাকি ১২৩ জন (৮%) শাহাদাত বরণ করেন সন্ত্রাসী আইএস ও অজ্ঞাত লোকদের দ্বারা।

অন্যদিকে ৯৩২টি হামলার ঘটনায় আহত হন প্রায় ১০৬৫ জন আফগান জনসাধারণ। যাদের মধ্য হতে ৯৫৩ জনই আহত হন ক্রুসেডার আমেরিকা ও তাদের আফগান মুরতাদ গোলাম বাহিনীর হামলায় এবং বাকি ১১২ জন লোক আহত হন সন্ত্রাসী আইএস ও অজ্ঞাত ব্যাক্তিদের হামলায়।

এছাড়াও রাতের বিভিন্ন গোপন অভিযানের মাধ্যমে বন্দী করে নিয়ে যাওয়া হয় আরো ৬১২ জন আফগান বেসামরিক নাগরিককে। অন্যদিকে ধ্বংস করে দেওয়া হয় ৪৭টি মসজিদ, ৯টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ১২টি ক্লিনিক বা হাসপাতাল, সাধারণ জনতার ৮৪৭টি ঘর-বাড়ি, ৮৮টি গাড়ি, ৭৮৯টি দোকান, ৭১৩টি মোটরসাইকেল, খেটে খাওয়া মানুষের হাজারেরও অধিক গবাদিপশু, ইচ্ছাকৃতভাবে কয়েক শত হেক্টর ফসলের ক্ষেত পুড়িয়ে দেওয়া হয়, মানুষের গোলাভরা গম ও যব পুড়িয়ে দেওয়া হয়, তল্লাশির নামে সাধারণ আফগানীদের ঘর হতে মূল্যবান অনেক সম্পত্তি ও নগদ অর্থ চুরিসহ জঘন্যতম সকল অপকর্মগুলোই এই সন্ত্রাসী আমেরিকা ও আফগান মুরতাদ বাহিনীর দ্বারা সংঘটিত হয়েছে।

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন