আসামের এনআরসি: রোহিঙ্গাদের মত আরেকদল মুসলিম উদ্বাস্তু!

1
592

আসামের মুসলিমদেরকে নিরবে তাড়িয়েই দিলো সন্ত্রাসবাদী মুশরিক হিন্দু সরকার! আজ ৩১শে আগস্ট ২০১৯ সকাল ১০টায়, কথিত এনআরসির নামে সন্ত্রাসবাদী মুশরিক হিন্দু সরকার ১৯ লাখ ৬হাজার ৬৫৭ জনকে অবৈধ অভিবাসী আখ্যা দিয়ে আসাম থেকে তাড়ানোর এবং জেলে বন্দী করার ব্যবস্থা করেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে আগে থেকেই সেখানে সতের হাজারের অধিক সেনা মোতায়েন এবং ১৪৪ ধারা জারি করেছে সন্ত্রাসবাদী মুশরিক হিন্দু সরকার।

হিন্দুত্ববাদী মুশরিক সরকার মূলত আসামের বাংলাভাষী মুসলিমদেরকে এই এনআরসি তালিকার হিংসাত্মক লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করেছে। পৈশাচিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সন্ত্রাসবাদী মুশরিক সরকার ১৯ লাখের অধিক মানুষকে আজ অবৈধ বিদেশী তথা বাংলাদেশী আখ্যা দিয়ে দেশ ছাড়া করার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আসামের হিন্দুত্ববাদী মুশরিক মন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা বলেছে, ‘অবৈধ অভিবাসীদের কীভাবে বিতাড়ন করতে পারি সে সম্পর্কে নতুন কৌশল গ্রহণে কেন্দ্র ও আসাম সরকার মধ্যে আলোচনা শুরু হয়েছে।’

তালিকা থেকে কিছু হিন্দুর নাম বাদ পড়লেও মুশরিক হিন্দুত্ববাদী সরকার আগেই ঘোষণা দিয়েছে এ নিয়ে হিন্দুদের চিন্তার কোন কারণ নেই! কেননা, তাদের নাম তালিকা থেকে বাদ পড়লেও তারা ভারতে আশ্রয় পাবে। মুসলিম বাদে অন্য সকল ধর্মাবলম্বীদের ভারতে আশ্রয় দেওয়া হবে বলে জানায় সন্ত্রাসবাদী মুশরিক হিন্দু সরকার।

মুশরিক হিন্দুত্ববাদী গেরুয়া সন্ত্রাসী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ মোদী বহুবার বলেছে যে, আসাম থেকে মুসলিমদের বহিষ্কার করা হবে। আর, এসব নির্যাতিত মুসলিমদেরকে হিন্দুত্ববাদীরা বাংলাদেশী বললেও এসকল বিষয়ে কোন মন্তব্য করেনি বাংলাদেশের হিন্দুত্ববাদীদের দালাল সরকার। বাংলাদেশের ভারতীয় হিন্দুত্ববাদী দালাল সরকার যে এসকল নির্যাতিত মুসলিমদের গ্রহণ করবে না সেটাও নিশ্চিত। তাই, মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের মতো আরেকদল মুসলিমদেরকে ঘরবাড়ি ও রাষ্ট্র পরিচয়হীন করেছে ভারত।

১টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন