ভারতে মহিলাদের পোশাক পরতে বাধ্য করা হয়েছে এক কাশ্মীরিকে

0
440

গত ৫ সেপ্টেম্বর ভারতের রাজস্থানের আলওয়ার জেলায় ২৫ বছর বয়সী একজন কাশ্মীরিকে নারীদের পোশাক পরা এবং একটি স্তম্ভের সাথে বেঁধে রাখার একটি ভিডিও অনলাইনে প্রকাশিত হয়েছে।

যুবকটির নাম মীর ফয়েজ। তিনি তৃতীয় বর্ষের বৈমানিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ছাত্র। দ্য কুইন্টের সাথে কথা বলার সময়, ফয়েজের বড় ভাই ফয়সাল, যিনি দিল্লিতে কর্মরত ছিলেন, ঘটনাটি শুনে নিমরানার দিকে যাত্রা করেন। এরপর তিনি ব্যাখ্যা করলেন যে তাঁর ভাইকে কেন মহিলাদের পোশাক পরা হয়েছিল।

“হিন্দুত্ববাদী পুলিশের কাছে অভিযোগ করার সময় আমার ভাই বলেছিল যে, যখন সে কিছু জিনিস কিনতে নিমরানা বাজারে গিয়েছিলেন, তখন তাকে তিনজন মুত্রসেবনকারী তার পথ আটকে রাখে। তারপর তারা তাকে একটি বাইকে উঠতে বাধ্য করে। তারা তাকে একটি নির্জন জায়গায় নিয়ে যায় এবং তাকে একটা মহিলার পোশাক পরতে বাধ্য করে। তারপরে তারা তাকে ওই পোশাক পরে বাজার ঘুরে দেখার নির্দেশ দেয়। এমনটি না করলে তাকে মেরে ফেলারও হুমকি দেয়। তখন সে একটি এটিএমের পাশে হাঁটতে চেষ্টা করেছিল এবং কাপড় বদলিয়েছিল কিন্তু সে ছিল আতঙ্কিত। যখন সে বাইরে এসেছিল, তখন কিছু লোক তাকে সন্দেহের বশে আটকিয়েছিল। এরপর তাকে তারা একটি স্তম্ভের সাথে বেঁধে বার বার চড় মারছিল।”

মীরের অভিযোগের ভিত্তিতে গেরুয়া পুলিশ বাহিনী ৩২৩ (স্বেচ্ছায় আঘাত হানা), ১৪৩ (অবৈধ সমাবেশ), ৩৪১ (অন্যায়ভাবে আটকে রাখা), ৩৪২ (অন্যায়ভাবে আটকে রাখা), ৫০৫ (আঘাত হানার অভিপ্রায়) এবং ৫০৬(ফৌজদারি ভয় দেখানো) আইপিসির মামলা দায়ের করে।

ফয়সাল বলেছেন যে তারা অভিযোগ দায়ের করলেও হিন্দুত্ববাদী পুলিশ তার ভাইকে অপরাধী বলে আচরণ করেছে। “গতরাত থেকে তারা তাকে তালাবন্ধ করে রেখেছিল। সে আমাকে বলেছিল যে সে তার বাম কানে কিছুই শুনতে পাচ্ছে না। এটা উদ্বেগজনক। আমার নিশ্চিত হওয়া দরকার যে আমার ভাই জরুরি চিকিৎসা সহায়তা পেয়েছে।”

“আমার ভাই কেন মহিলার পোশাক পরেন তা যখন পুলিশ নিশ্চিতভাবে বুঝতে সক্ষম হয় নি, তখন গোমুত্র বাহিনী মামলাটি গোয়েন্দা সংস্থায় স্থানান্তরিত করে। তাকে সিআইডি ও আইবি জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল।” ফয়জল দ্য কুইন্টকে নিশ্চিত করেছেন।

গেরুয়া পুলিশ বলছে যে তারা ফয়েজের একটি মেডিকেল পরীক্ষা করেছে এবং কর্মকর্তারা বলেছে যে তদন্ত চলছে।

এর আগে, শিশু পাচারের অভিযোগ করা হয়েছিল, তবে সাব-ইন্সপেক্টর লক্ষ্মণ সিং বলেছে যে বিষয়টি এমন ছিল না।

“এলাকায় শিশু পাচারের চলমান গুজবগুলির সাথে এর কোনও যোগসূত্র নেই। মামলার আরও তদন্ত করা দরকার। ছেলেটি দাবি করছে যে সে জানে না যে এই তিনটি ছেলে কে ছিল যারা তাকে জোর করে মহিলার পোশাক পরিধান করতে বাধ্য করেছে। কয়েক ঘন্টা তাকে কারাগারে রাখার পরে আমরা তাকে গুড়গাঁওয়ে থাকা তার ভাইয়ের সাথে যেতে দিয়েছি।”

সুত্রঃ দ্য কুইন্ট

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন