ভারতীয় মালাউনদের আগ্রাসনে কাশ্মীরে মানবতা ভূলুণ্ঠিত!

1
328

ভারতীয় মালাউনরা ভূস্বর্গ খ্যাত জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করায় অঞ্চলটিতে ইতোমধ্যে এক থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। গত তিন মাস ধরে সেখানে কোন  প্রতিনিধি কিংবা সাংবাদিকদের প্রবেশ করার অনুমতি দেয়নি ভারতীয় মালাউন সরকার।

যা নিয়ে দেশব্যাপী সৃষ্ট উত্তেজনাকর পরিস্থিতির মধ্যে এবার উপত্যকাটি পরিদর্শন করার অনুমতি দিয়েছিল মালাউন মোদির মতই ডানপন্থী ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সংসদীয় দলের প্রতিনিধিদের।

গত মঙ্গলবার (২৯ অক্টোবর) সফরের শুরুতেই কাশ্মীরের পরিস্থিতি নিয়ে চরম উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ইইউ প্রতিনিধিরা। তাদের অভিমত, বর্তমানে উপত্যকাটিতে বসবাসরতরা অনেকাংশেই তাদের মানবাধিকার থেকে বঞ্চিত।

বিভিন্ন সূত্রের বরাতে গণমাধ্যম ‘এনডিটিভি’ জানায়, বর্তমানে উপত্যকার বাস্তব পরিস্থিতি স্বচক্ষে পরিদর্শনের জন্য মঙ্গলবার অঞ্চলটিতে ভ্রমণ করে ২৩ সদস্য বিশিষ্ট ইইউ একটি প্রতিনিধি দল। যেখানে তারা কাশ্মীরের বিভিন্ন শ্রেণির লোকজন এবং প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে।

পরবর্তীতে দলটির সদস্য হিসেবে সেখানে যাওয়া ইইউর মানবাধিকার সম্পর্কিত হাই কমিশনার রুপের্ট কোলভিলে একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। যেখানে সে বলেছে, ‘আমরা অত্যন্ত উদ্বিগ্ন, কাশ্মীরে জনগণ দীর্ঘদিন যাবত মানবাধিকার থেকে বঞ্চিত। আমরা ভারত সরকারের প্রতি আবেদন জানাচ্ছি, তারা যেন অবিলম্বে সেখানকার অবরুদ্ধ পরিস্থিতি প্রত্যাহার করে অঞ্চলটির মানবাধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠা করে।’

প্রেস বিবৃতিতে সে আরও বলেছে, ‘জম্মু-কাশ্মীর এবং লাদাখের একাধিক স্থান থেকে মাত্র কয়েকদিন আগেই কারফিউ শিথিল করা হয়েছে। যদিও এখন পর্যন্ত রাজ্যের অধিকাংশ অঞ্চলে আগের পরিস্থিতি বিরাজ করছে। এমনকি জনগণের অবাধ চলাচলেও নিষেধাজ্ঞা রয়েছে; জনগণের শান্তিপূর্ণ কর্মকাণ্ডের অধিকারেও হস্তক্ষেপ করা হচ্ছে। কেবল এসব ক্ষেত্রেই নয় অঞ্চলটির শিক্ষা, স্বাস্থ্য এবং ধর্মের স্বাধীনতার ওপরও সরকারের পক্ষ থেকে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। যা কারই কাম্য নয়।

এদিকে,  বিশ্লেষকগণ বলছেন,  যেহেতু ‘ইইউ প্রতিনিধিরা কাশ্মীরে বেসরকারিভাবে ভ্রমণ করতে গেছে। যার অর্থ তারা বিষয়টি নিয়ে তেমন কোনো পদক্ষেপ নেবে না। যা আমাদের কাম্য নয়।’

১টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন