আবারও কোচের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ অ্যাথলেটের

0
215

মৌলভীবাজারের অ্যাথলেট একাডেমির এক কোচের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ এনেছেন জাতীয় জুনিয়র দলের এক নারী অ্যাথলেট।

গত বছর সেপ্টেম্বরে ধর্ষণের শিকার এক নারী ভারোত্তোলককে মানসিক হাসপাতালে যেতে হয়েছিল। সেই রেশ কাটতে না কাটতেই ক্রীড়াঙ্গনে ঘটে গেল আরেকটি নেতিবাচক ঘটনা। এবার একজন কোচের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ তুলেছেন জাতীয় জুনিয়র দলের এক নারী অ্যাথলেট। যৌন হয়রানির শিকার সেই অ্যাথলেট মানসিকভাবে এতটাই ভেঙে পড়েছেন যে আত্মহত্যার কথাও নাকি ভেবেছেন! ওই নারী অ্যাথলেটের অভিযোগ, তাঁকে যৌন হয়রানি করেছেন মৌলভীবাজারের স্থানীয় অ্যাথলেট একাডেমির এক কোচ।

অভিযোগ পাওয়ার পর একাডেমি কর্তৃপক্ষ ওই কোচকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিলেও তা বাস্তবায়নে গড়িমসি করছে। উল্টো যৌন হয়রানির শিকার অ্যাথলেটকে একাডেমি ছাড়তে বলা হয়েছে এবং নানাভাবে হুমকিও দেওয়া হচ্ছে তাঁকে। থানায় জিডি (সাধারণ ডায়েরি) করতে চাইলেও তাঁকে বাধা দিচ্ছে একাডেমির কর্মকর্তারা।

গত ২৬ অক্টোবর বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে শেষ হয় ৩৫তম জাতীয় জুনিয়র মিট। এই প্রতিযোগিতার প্রস্তুতি নিতে মৌলভীবাজার জেলা স্টেডিয়ামে অনুশীলন করতেন ওই নারী অ্যাথলেট। ২১ অক্টোবর অনুশীলনের সময় হাঁটুতে চোট পেয়ে গ্যালারিতে গিয়ে বসেন তিনি। অ্যাথলেটের অভিযোগ, কোচ তখন সেবা-শুশ্রূষার কথা বলে তাঁকে পাশের একটি কক্ষে ডেকে নিয়ে যান। সেখানে গিয়ে কোচের মাধ্যমেই যৌন হয়রানির শিকার হন তিনি। রুমে তখন আর কেউ ছিল না।

কাল ওই অ্যাথলেট কান্নাজড়িত কণ্ঠে এই প্রতিবেদককে বলছিলেন, ‘আমি যখন চোট পেয়ে গ্যালারিতে এসে বসি, স্যার এসে বলেন, এসো সামনের রুমে যাই। ওখানে তোমার কোথায় চোট লেগেছে, সেটা দেখব। অন্য সময় চোট পেলে মাঠের মধ্যেই স্যার দেখেন, কিন্তু ওই দিন রুমে যেতে বলায় শুরুতে যেতে চাইনি। কারণ, সেখানে মেয়ে শুধু আমি একা, ছেলেরা মাঠে অনুশীলনে ছিল। তারপরও স্যার যেহেতু বলেছেন, নিশ্চয় ভালো কিছু করবেন, এটা ভেবে সেখানে যাই। কিন্তু রুমে ঢুকেই তিনি আমার শরীরের বিভিন্ন স্থানে জোর করে হাত দেন। আমি হাত সরিয়ে দিয়ে বলি, স্যার, আপনি এমন করছেন কেন? আমি বলি, স্যার, আজ অনুশীলন করব না এবং একপর্যায়ে অনেক কষ্টে দৌড়ে রুম থেকে বেরিয়ে আসি।’

ঘটনার আকস্মিকতায় হতবিহ্বল ওই অ্যাথলেট কী করবেন ভেবে পাচ্ছিলেন না, ‘মাঠে তখন সবাই ছেলে। এই ঘটনা যে কারোর কাছে বলব, সেটাও পারছিলাম না। আমি জুনিয়র মিটে খেলতে চেয়েছিলাম। কিন্তু এই ঘটনার পর কোন ভরসায় ওনার সঙ্গে ঢাকা যাব খেলতে? স্যারকে অনেক সম্মান করতাম। কিন্তু তাঁর এমন আচরণে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছি। মাঝেমধ্যে মনে হয় আত্মহত্যা করি।’

মৌলভীবাজার সদরের এই অ্যাথলেট একাডেমির পাঁচ পরিচালকের অন্যতম অভিযুক্ত কোচ। ঘটনার কয়েক দিন পর মৌলভীবাজার জেলা ক্রীড়া সংস্থার কর্মকর্তা এবং একাডেমির পরিচালকেরা তাঁকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে বলেন। সে ক্ষমাও চায়। কিন্তু ওই অ্যাথলেটের দাবি ছিল, কোচকে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করা হোক। কোচ তাঁর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করলেও এই প্রতিবেদককে বলেছেন, ঘটনার জন্য ক্ষমা চেয়েছে সে, ‘আমি বিষয়টি নিয়ে সবার সামনে ক্ষমা চেয়েছি। কিন্তু সত্যি করে বলছি, ওই মেয়ের সঙ্গে আমি কিছু করিনি। এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা ঘটনা। নির্দ্বিধায় বলতে পারি, আমি নির্দোষ। আমি যদি খারাপ হতাম, তাহলে এলাকার পাঁচটি স্কুলের কোচের দায়িত্ব পেতাম না।’

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন