‘কেবলমাত্র সন্ত্রাসীরাই তাদের মুখ ঢাকে’: ভারতে বোরকা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করার দাবি

0
368

ভারতের উত্তর প্রদেশের শ্রমমন্ত্রী মালাউন রঘুরাজ সিং নারীদের বোরকা পরার ওপর সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা দাবি করে বলেছেন, সন্ত্রাসীরাই কেবল ফাঁকি দেয়ার জন্য বোরকা ব্যবহার করে।

দৃশ্যত নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের (সিএএ)-এর বিরুদ্ধে সারা ভারতে চলমান প্রতিবাদের দিকে ইঙ্গিত করে রঘুরাজ দাবি করে যে অপরাধী ও সন্ত্রাসীরা তাদের পরিচিতি গোপন করার জন্য বোরকা ব্যবহার করে।

ক্ষমতাসীন বিজেপির রাজনীতিবিদেরা মুসলিম নারীদের বোরকার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার দাবি জানিয়ে আসছে। সে বলেছে বোরকা হলো আরব দেশগুলোর ঐতিহ্য, এটি ভারতের ঐতিহ্য নয়। ভারত হলো হিন্দুদের দেশ।

এই বিতর্কিত মন্তব্যের জন্য ভারতীয় মিডিয়ার মুখোমুখি হয়ে রঘুরাজ সিং কোনো ধরনের অনুশোচনাগ্রস্ত হননি। তিনি আরো জোরালোভাবে বলেন যে আমি যা বলেছি, তা নিয়ে কোনো অনুশোচনা নেই আমার।

রঘুরাজ অবশ্য আগেও এ ধরনের বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন। তিনি গত জানুয়ারিতে বলেছিলেন, যারা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করবে, তাদেরকে ‘জীবন্ত কবর’ দেয়া হবে। তিনি আরো বলেন, যারা দেশদ্রোহী, তাদের কুকুরের মতো মারা হবে।

মুসলিমদের বিরুদ্ধে প্রচারণা

এর আগে উত্তরপূর্ব ভারতের একটি মহিলা কলেজের ছাত্রীদেরকে বোরকা পরে ক্লাসরুমে যেতে নিষিদ্ধ করা হয়। কর্তৃপক্ষের যুক্তি ছিল যে এটা প্রতিষ্ঠানের ড্রেসকোডের লঙ্ঘন। এই আইন লঙ্ঘনকারীকে জরিমানা দিতে হবে বলে আদেশ জারি করা হয়।

পাটনার জেডি ওম্যান্স কলেজে এক নোটিশে জানায়, ছাত্রীদের দেহে ইসলামি পরিচিতিসূচক কোনো পোশাক থাকতে পারবে না।

কলেজের এক বিবৃতিতে বলা হয়, সব ছাত্রীকে ড্রেস কোড অনুসরণ করতে হবে। যারা এই নীতি লঙ্ঘন করবে তাদেরকে ২৫০ রুপি জরিমানা দিতে হবে।

সূত্র:  

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন