সোভিয়েত ইউনিয়ন এর পরাজয় উপলক্ষে ইসলামিক ইমারাতের তরফ থেকে বার্তা

0
470

১৫ ফেব্রুয়ারি ইতিহাসের একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন। এই দিনটিতে আল্লাহ’র রহমতে আফগান মুসলিমরা বিশ্বের অন্যতম শক্তিধর সোভিয়েত ইউনিয়নকে সমগ্র বিশ্বের সামনে পরাজিত এবং অপমানিত করতে সক্ষম হয়েছিল।

1367 (হিজরি সোলার) ১৫/২/১৯৮৯ এই দিনেই শেষ সোভিয়েত সৈন্যদল আমু নদীর ব্রিজ দিয়ে আফগানিস্তান ত্যাগ করে এবং সেই সঙ্গে আফগানরা এক আন্তর্জাতিক ঔপনিবেশিক জোটকে সম্পূর্ণ ভাবে পরাজিত করে।

এই দিনেই বিশ্বের অন্যতম দুর্বল এবং অরক্ষিত একটি দেশ পরাজিত করে এই পৈশাচিক রেড আর্মিকে ,যারা কিছু নির্লজ্জ সহকারীদের নিয়ে নিজেরদের সুবিধার জন্য সমস্ত শক্তি নিয়ে আমাদের দেশের ওপর এমন বর্বর অত্যাচার করেছিল, যা শুনলে আপনাদের গা শিউরে উঠবে।

সোভিয়েত ইউনিয়ন ও তার ভাবাদর্শে অনুপ্রাণিত পুতুল সরকারগুলো দীর্ঘ তিন দশক ধরে আমাদের প্রিয় দেশে সামরিক এবং মতাদর্শগত আক্রমণ চালিয়ে গেছে। আজ ত্রিশ বছর বাদেও ,আমাদের দেশের আজকের সমস্যা এবং দুর্দশা ওই ভয়ঙ্কর কমিউনিস্ট শাসনের প্রত্যক্ষ প্রভাব এর সাথে যুক্ত।

যদি বর্তমান পশ্চিমা শাসক বিশেষত NATO এবং তাদের পুতুল সরকারের যদি সামান্যতম চেতনা থাকে তবে তাদের উচিত সোভিয়েত ইউনিয়ন এর পরাজয় থেকে শিক্ষা নেওয়া। এর পরেও যদি তারা এই কর্মপন্থা নিয়ে চলে তবে তাদের অবস্থা সোভিয়েত ইউনিয়ন এর মতোই হবে। কমিউনিস্ট এর সমর্থকদের ওই পরাজয় বর্তমান শাসক গোষ্ঠীর প্রত্যেককেই মনে করিয়ে দেওয়া হবে।

এই ঐতিহাসিক দিন এবং ঘটনা প্রমান করে যে কোনো ছদ্মবেশী পরিকল্পনাকারী ,কোনো সামরিক শক্তি, কোনো আর্থিক শক্তি ,কোনো বিদেশী মতবাদকে আফগানিস্তানের ভূমিতে শক্ত ঘাঁটি গাড়তে কোনরূপ সাহায্য করা হবে না। আর আফগানিস্তানের জিহাদের ভূমি কোনো দিনেই কারোর দালাল-এ পরিণত হবে না। (ইনশাআল্লাহ)

ইমারতে ইসলামিয়া আফগানিস্তান ১৫ ফেব্রুয়ারি কে সোভিয়েত ইউনিয়ন এবং তার কমিউনিস্ট মতবাদ থেকে পরিত্রানের দিন বলে মনে করে। আমরা এই স্বাধীনতায় গর্বিত। এবং এই দিনে শহীদের উত্তরাধিকারী হিসেবে আমরা শপথ নিচ্ছি যে আমরা বর্তমান মার্কিন দখলদারদের থেকে আমরা আমাদের দেশকে মুক্ত করবোই। ইনশাআল্লাহ

১৫ ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে ইমারতে ইসলামিয়া সমগ্র দেশবাসিকে অভিনন্দন জানানোর পাশাপাশি এটাও মনে করিয়ে দিতে চায় যে আমাদের শহীদ, অনাথ, অক্ষম এবং বস্তুচ্যুতদের ইচ্ছা আকাঙ্ক্ষা, এই বর্তমান জিহাদের দ্বারা পূর্ণ হবে এবং আল্লাহর রহমতে মুসলিসরা বর্তমান এই দুর্দশা কাটিয়ে নতুন সূর্যোদয় দেখবে।

ইমারতে ইসলামিয়া আফগানিস্তান।

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন