মামলার ভয় দেখিয়ে ৫ লাখ টাকা দাবি সন্ত্রাসী পুলিশের

0
93

মামলার ভয় দেখিয়ে বরিশালগামী মানামী লঞ্চ থেকে নামিয়ে আনা হয় মো. খবির উদ্দিন গাজী নামের এক যাত্রীকে। তাকে মারধর করে ৫ লাখ টাকা দাবি করা হয়। তিনি অপারগতা প্রকাশ করেন। পরে তার সঙ্গে রক্ষিত নগদ ৫০ হাজার টাকা এবং তার এটিএম কার্ডের মাধ্যমে দুই দফায় আরও ২৫ হাজার টাকা লুট করে নিয়ে যাওয়া হয়। এর পর একটি অন্ধকার গলিতে তাকে ছেড়ে দিয়ে কেটে পড়ে লুটেরার দল। আর সেই দলের নেতৃত্ব দিয়েছেন লালবাগ থানার সন্ত্রাসী এএসআই সাজ্জাদ হোসেন মামুন এবং তার অনুগত পাঁচ সোর্স।

আমাদের সময় বরাতে জানা যায় লালবাগ থানার এএসআই সাজ্জাদ হোসেন মামুন ছাড়াও তার আরও তিন সোর্স হিসেবে মো. মাইনুল ইসলাম বাবু, মো. রাকিব হোসেন ও আসলাম তার কাছ থেকে টাকা লুট করে। বাদী বলেছেন, আর দুই সোর্সকে তিনি চেনেননি। গত ৯ ফেব্রুয়ারি রাতে বরিশালগামী মানামী লঞ্চে এ কা-ের সূত্রপাত বলে জানান খবির। তাকে ঘটনার দিন রাতে মানামী লঞ্চ থেকে নামিয়ে নিয়ে যাওয়ার দৃশ্য ধরা পড়েছে দুটি ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরায় (সিসি ক্যামেরা)।

তবে সেই লুটের পর ১৪ দিনেও কাউকে আটক না করায় ক্ষুব্ধ খবির উদ্দিন গতকাল রবিবার লিখিত অভিযোগ করেছেন পুলিশ সদর দপ্তরের ‘আইজিপি’স কমপ্লেইন সেল’সহ বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ দপ্তরে।

এএসআইয়ের পোশাকে নামযুক্ত কোনো ব্যাজ ছিল না। সাজ্জাদ আমাকে বলেন, আপনার নাম খবির উদ্দিন গাজী? মাথা নাড়তেই বলেন, আপনার নামে মামলা আছে, স্যার নিচে অপেক্ষা করছে। এই বলে দুজন আমাকে লঞ্চ থেকে নামিয়ে রাস্তায় অপেক্ষমাণ দুটি মোটরসাইকেলের একটিতে তুলে দেন। গাড়ি দুটো বুড়িগঙ্গার পশ্চিম পাড় দিয়ে এগোতে থাকে। অন্য মোটরসাইকেলটি ছিল আমাদের পেছনে। আমি ভয়ে চেঁচামেচি করলে তারা আমাকে মারধর করতে শুরু করে। সন্ত্রাসী এএসআই সাজ্জাদ আমার মুখে ঘুষি মারে।

পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডে গিয়ে মাদক দিয়ে চালান করাসহ জানে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে তারা আমার কাছে পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। এর আগেই আমার প্যান্টের পকেটে থাকা ৫০ হাজার টাকা কেড়ে নেওয়া হয়। পরে আসলাম আমার এটিএম কার্ড থেকে নাজিমউদ্দিন রোডের একটি ব্র্যাাক ব্যাংকের বুথে ঢুকে প্রথমে ৫ হাজার পরে ২০ হাজার টাকা তুলে নেন। এর পর তারা একটি অন্ধকার গলিতে নিয়ে গেলে আমি ভয়ে বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার শুরু করি। এ সময় তারা আমাকে ফেলে মোটরসাইকেল নিয়ে চলে যান।

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন