বাংলাদেশের বারবার অনুরোধের পরও মুহুরী বিরোধ ঝুলিয়ে রেখেছে ভারত

0
224

মুহুরী নদীর মধ্যস্রোতকে সীমানা ধরে এ নিয়ে সীমান্ত বিরোধ মিটিয়ে ফেলতে বাংলাদেশ বারবার অনুরোধ করার পরও কথিত বন্ধু রাষ্ট্র ভারত তা ঝুলিয়ে রেখেছে। খবর- নিউ এইজ

ভারত সফরের সময় গত ৫ অক্টোবর নয়া দিল্লির হায়দরাবাদ হাউসে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সাথে বৈঠকের সময় সর্বশেষবারের মতো বিষয়টি উত্থাপন করে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বাংলাদেশ পক্ষ এই ইস্যুতে কোনো ধরনের সুস্পষ্ট জবাব পায়নি এবং ওই দিন বিকেলে সফরটি নিয়ে প্রকাশিত যৌথ বিবৃতিতে এর কোনো উল্লেখই ছিল না।

প্রধানমন্ত্রী ৯ অক্টোবর গণভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বলেন যে মুহুরীর চর নিয়ে আমাদের এখনো কিছু কথা আছে। বিষয়টি আমি ভারতের প্রধানমন্ত্রীর কাছে উত্থাপন করেছি। এর মাধ্যমে ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে যে মুহুরী নদীর মধ্যস্রোতকে নিয়ে বিরোধ এখনো রয়ে গেছে।

শেখ হাসিনা ২০১৫ সালে ঢাকায় ও ২০১৭ সালে নয়া দিল্লিতে মোদির সাথে দ্বিপক্ষীয় আলোচনার সময়ও বিষয়টি উত্থাপন করেছিল।

আর মন্ত্রী পর্যায়ে গত আগস্টে দুই দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদের সভায় বাংলাদেশ সর্বশেষবারের মতো মুহুরীর মধ্যস্রোত নিয়ে বিরোধের কথা উল্লেখ করে। জবাবে ভারতের মন্ত্রীর কাছ থেকে বাংলাদেশ কেবল ‘আশ্বাস’ই লাভ করে।

উভয় পক্ষের জরিপকারীরা মুহুরী নদীর মধ্যস্রোত নির্ধারণ করার চেষ্টা চালানোর প্রেক্ষাপটে মুহুরীর চর বিরোধটি সামনে আসে।

ভারতীয়রা দাবি করছে যে আঁকাবাঁকা নদীটি ২০১১ সালে যেমন অবস্থায় ছিল, তার আলোকে মধ্যস্রোত ধরে সীমান্তকে গ্রহণ করা উচিত বাংলাদেশের। আর বাংলাদেশ চায় ১৯৭৭-৭৮ সালের জরিপের আলোকে ইস্যুটির মীমাংসা।

বাংলাদেশের অবস্থানের পক্ষে যুক্তি হলো এই যে মুহুরী নদীটি ১৯৭৭-৭৮ সালের পর ধারা বদলে বাংলাদেশের ভেতরে ঢুকে গেছে। আর এমনটা হওয়ার কারণ ভারতীয় এলাকায় শক্ত বাধ ও স্পার নির্মাণ। ফলে বাংলাদেশের ফেনীর বিশাল এলাকা নদীতে চলে গেছে।

দুই দেশের সীমান্ত রক্ষীরা মুহুরীর চরের বিরোধী নিয়ে অন্তত আটবার গুলি বিনিময় করেছে বলে সরকারি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন