শিশু ও নারীসহ ১৫ রোহিঙ্গাকে গ্রেফতার করল মিয়ানমার পুলিশ, ২বছর কারাদণ্ড

1
198

লাখ লাখ রোহিঙ্গা গণহত্যা,অত্যাচার,নির্যাতন ও ধর্ষণ থেকে বাঁচতে গত বেশ কয়েক বছরে মিয়ানমার ছেড়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে উদ্বাস্ত হিসেবে আশ্রয় নিয়েছে। যাদের সবচেয়ে বড় অংশটি আশ্রয় নিয়েছে প্রতিবেশী বাংলাদেশে।

মিয়ানমারের রাখাইন ও আরাকানে প্রদেশে এখনো কিছু কিছু মুসলিম রয়েছেন। যাদের অনেকেই নানা নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন বলে খবর প্রকাশ করেছেন “রেডিও ফ্রী এশিয়া “।

মিয়ানমারের পুলিশ জানায়,৮জন পুরুষ ৭জন নারী ও একজন শিশু সহ গত ৬মার্চ ১৬জনের মতো একটি দল মিয়ানমার ছেড়ে মালয়েশিয়া পালানোর সময় পুলিশ তাদের ধরে ফেলে। পরে তাদের প্রত্যেককে ২বছর করে কারাদন্ড প্রদান করে।

অভিবাসন কর্মকর্তা অং পাই পাই সো জানান,তাদেরকে মিয়ানমারের মধ্য ম্যাগওয়ে অঞ্চলের মিনহলা এলাকায় একটি আদালতে দোষী সাব্যস্ত করে সাজা দেওয়া হয়। তাদের দোষী সাব্যস্ত করতে সাক্ষ্যপ্রমাণের প্রয়োজন পরেনি। কারণ তাদের কাছে বৈধ কোন কাগজপত্র ছিল না।

আট জন পুরুষ এবং সাতজন মহিলাকে মিয়ানমারের অভিবাসন আইনের ৬(৩) ধারার অধীনে স্থানীয় আদালতে দণ্ডিত করে তাৎক্ষণিকভাবে থাইয়েট কারাগারে স্থানান্তরিত করা হয়েছিল এবং ছয় বছর বয়সী এই শিশুটিকেও পিতা মাতা থেকে আলাদা করে ম্যাগওয়ে চাইল্ড কেয়ার সেন্টারে প্রেরণ করা হয়েছিল।

১টি মন্তব্য

Leave a Reply to মোঃ আমিন প্রতিউত্তর বাতিল করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন