বিহারে ’জয় শ্রীরাম’ স্লোগান দিয়ে মসজিদে ভাঙচুর, মুসল্লিদের মারধর-হুমকি

2
537
বিহারে জয় শ্রীরাম স্লোগান দিয়ে মসজিদে ভাঙচুর, মুসল্লিদের মারধর-হুমকি

ভারতের বিহার রাজ্যে একটি মসজিদে ’জয় শ্রীরাম’ স্লোগান দিয়ে হামলা চালিয়েছে বিজেপি সমর্থক গুণ্ডারা। এ সময় মসজিদের গেট ও মাইক ভাংচুর এবং মুসল্লিদের মারধর করা হয়েছে। সেইসঙ্গে হুমকি দিয়ে বলা হয়েছে, তোমরা এখান থেকে চলে যাও, তোমরা এদেশের কেউ না।

জানা গেছে, সম্প্রতি বিধানসভা নির্বাচনের ফল ঘোষণার পর বিজেপি সমর্থকদের বিজয় মিছিল থেকে ওই হামলা চালানো হয়।

গতকাল শুক্রবার ভারতের হিন্দি গণমাধ্যম দ্য ওয়্যার এ খবর দিয়েছে বলে জানিয়েছে পার্সটুডে। এতে বলা হয়, বিহারের পূর্ব চম্পারন জেলার জামুয়া গ্রামে ওই ঘটনা ঘটেছে।

ওই সময় বিজেপি সমর্থকরা জয় শ্রীরাম স্লোগান দিয়ে কয়েকটি গাড়ি ও ভাঙচুর করে। এ ছাড়া মসজিদের দুটি গেট ও মাইক ভাংচুর করা হয়। সেইসঙ্গে মুসল্লিদের ওপর হামলা চালানো হয়। এতে অন্তত পাঁচ মুসল্লি আহত হন।

খবরে বলা হয়েছে, বিহার বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি নেতৃত্বাধীন জোট এনডিএ সাফল্য পেয়েছে। স্থানীয় বিজেপি নেতা পবন কুমার জয়সওয়াল গত ১০ নভেম্বর ভোট গণনা শেষে জামুয়া ঢাকা বিধানসভায় বিজয়ী হয়। তার বিজয় উপলক্ষে গত বুধবার বিজেপি সমর্থকরা পূর্ব চম্পারনের জামুয়া গ্রামে ওই বিজয় মিছিল করে।

জানা যায়, জামুয়ায় মাত্র ২০ থেকে ২৫টি মুসলিম পরিবার আছে। অন্যদিকে, হিন্দু পরিবার আছে পাঁচ শতাধিক।

ক্ষতিগ্রস্ত ওই মসজিদের তত্ত্বাবধায়ক মাজহার আলম দ্য ওয়্যারকে বলেন, মাগরিবের নামাজের সময় মসজিদে পাথর নিক্ষেপ করা হয়েছিল। বিজেপির বিজয় মিছিলে কমপক্ষে পাঁচ শ লোক ছিল। যখন তারা মসজিদের কাছে আসে তখন তারা পাথর নিক্ষেপ করা শুরু করে। তারা জয় শ্রীরাম স্লোগান দিয়ে গেট ও মসজিদের মাইক ভেঙে দেয়।

ওই মসজিদটি এলাকার অন্যতম প্রাচীন মসজিদ জানিয়ে তিনি বলেন, বিজেপি সমর্থকরা তাদের বলছিল, তোমরা এখান থেকে চলে যাও। এটা তোমাদের দেশ নয়। এর ফলে সেখানকার মুসলিম পরিবারগুলো আতঙ্কের মধ্যে আছে বলেও জানান মাজহার আলম।

গণমাধ্যম সূত্রে আরো জানা যায়,  তারা যখন মসজিদের কাছে পৌঁছায় তখন মসজিদে মাগরিবের নামাজ চলছিল। কিন্তু তারপরও তারা মাইকে স্লোগান দিতে থাকে। এ সময় মসজিদের বাইরে থাকা এক দোকানদার তাদের মাইক বন্ধ করতে বলেন। কিন্তু তার কথায় কেউ পাত্তা দেয়নি। এক পর্যায়ে কথা কাটাকাটি থেকে মসজিদের গেট ভাংচুর করে এবং মসজিদে পাথর নিক্ষেপ শুরু করে দেয় মিছিলকারীরা।

2 মন্তব্যসমূহ

  1. একের পর এক মুহুর্ত যেন শ্বাসরুদ্ধকর। তবে হতাশা হওয়ার কোন কারণ নেই। যত দিন যাচ্ছে গাজুয়াতুল হিন্দ এর সময় আসছে। মনে হয় আর বেশীদিন কষ্ট আর আতংকে থাকতে হবেনা মুসলমানদে। প্রতিটি মুহুর্তে গাজুয়াতুল হিন্দ এর কড়া নাড়ছে। প্রতিটা মুসলিম নির্যাতনএর হিসেবে তুলা হবে। কাশ্মীর থেকে গুজরাটের দিল্লির সহ যত মুসলিম নির্যাতন হয়েছে তার হিসেব তুলা হবে। মন আজ ক্ষতবিক্ষত তারপরও আমরা শক্ত অবস্থায়। কারণ আদার যত গভীর হয় প্রবাত ততই সন্নিকটে।

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন