ভারতে অসুস্থ মুসলিম সাংবাদিককে হাসপাতাল বেডে হ্যান্ডকাফ পড়িয়ে অমানবিক নির্যাতন

0
519
ভারতে অসুস্থ মুসলিম সাংবাদিককে হাসপাতাল বেডে হ্যান্ডকাফ পড়িয়ে অমানবিক নির্যাতন

সিদ্দীক কাপ্পান নামে এক মুসলিম সাংবাদিক গত ৫ ই অক্টোবর, ২০২০ উত্তরপ্রদেশের ধর্ষিত এক নারীর সাক্ষাৎকার নিতে গিয়ে হিন্দুত্ববাদীদের তোপের মুখে পড়েন। সিদ্দীক ১৯ বছর বয়সী ঐ দলিত নারীর পরিবারের সাক্ষাৎকার নিচ্ছিলেন, যে কিনা যোগী রাজ্যে ৪ জন ঠাকুর কর্তৃক দলগতভাবে ধর্ষিত হয়েছিল। এসময় সন্ত্রাসী যোগী আদিত্যনাথের পালিত পুলিশ বাহিনী এসে তাকে গ্রেফতার করে।

ভারতের কেলারা রাজ্যের প্রশংসিত সাংবাদিক সিদ্দীক কাপ্পানকে সামাজিক অস্থিরতা সৃষ্টির ষড়যন্ত্রের দায়ে কারাগারে প্রেরণ করা হয়।

সিদ্দীক কারাগারে থাকাকালীন সময়ে মালাউনদের অত্যাচারে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ে।  পরে টেস্টের মাধ্যমে তার করোনা আক্রান্তের বিষয় ধরা পড়ে। (সিদ্দীকের দেহে করোনা ভাইরাস ইঞ্জেক্ট করা হয়েছে নাকি কারাগারের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে অন্য কয়েদি থেকে উনার সংক্রমণ হয়েছে, প্রকৃত তথ্য আল্লাহু আলাম।)

গত ৬ই অক্টোবর সিদ্দীকের মুক্তি চেয়ে দায়ের করা পিটিশনটি ৭ বার বিচারিক তালিকাভুক্ত থাকার পরেও বিদ্বেষী ভারতীয় আদালত অন্তত ৬ মাসের জন্য মামলাটি ঝুলিয়ে রেখেছে।

করোনায় আক্রান্ত মুমূর্ষু এই সাংবাদিক উনার স্ত্রী রায়হানা সিদ্দীককে অন্যের মোবাইল থেকে ফোন করে জানান,”হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে টয়লেটে যেতে দিচ্ছে না। তাকে হাসপাতালের বেডের সাথে হাতকড়া দিয়ে আটকে রাখা হয়েছে, নড়াচড়া করার কোন অনুমতি নেই। হাসপাতালের বেডেই প্লাস্টিকের বোতলে তিনি প্রসাব করছেন।”

বিশ্বের মুসলিম রাষ্ট্রগুলো যখন করোনায় বিধ্বস্ত ভারতের প্রতি মানবিক সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে, তখনো করোনায় মৃত্যুপুরী ভারতে মুসলিম নির্যাতন থেমে নেই। বরং করোনা কালে হিন্দুত্ববাদী ভারতে ইসলাম বিদ্বেষ ও মুসলিম নির্যাতনের হার বহুগুণে বেড়েছে।

কথিত “লাভ জিহাদের” নামে মুসলিম যুবকদের নির্যাতন, চুরির গুজব রটিয়ে মুসলিম নিধন, গো-মাংস বহনের ধোঁয়াশা তুলে মুসলিমদের পিটিয়ে হত্যা, মুসলিমদের জোড়পূর্বক শিরকি বাক্য “জয় শ্রী রাম” বলানোর পাশাপাশি করোনায় যুক্ত হয়েছে নতুন নতুন কৌশল।

করোনার অজুহাতে আইন করে মসজিদ-মাদ্রাসাসহ দ্বীনি প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া, মুসল্লীদের একত্রে নামাজ পড়তে বাঁধা দেয়া, মুসলিম ব্যবসায়ীদের হিন্দু এলাকায় ব্যবসা করতে না দেয়া ও ঠুনকো অজুহাতে মুসলিমদের প্রহার করা এখন ভারত জুড়ে নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার!

 

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন