আফগানিস্তানে সমাজ বিধ্বংসী ‘ভ্যালেন্টাইন’স ডে’ উদযাপন নিষিদ্ধ করল তালিবান সরকার

ত্বহা আলী আদনান

4
1151
আফগানিস্তানে সমাজ বিধ্বংসী ‘ভ্যালেন্টাইন’স ডে’ উদযাপন নিষিদ্ধ করল তালিবান সরকার
সুবিধামত ফন্ট ছোট বড় করুনঃ

ইমারতে ইসলামিয়া আফগানিস্তানের তালিবান সরকার রাজধানী কাবুল সহ পুরো দেশে পশ্চিমা ‘ভ্যালেন্টাইন’স ডে’ উদযাপন এবং এই সম্পর্কিত যেকোন পণ্য বিক্রির উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

সূত্রে জানা গেছে যে, আফগানিস্তানে পশ্চিমা অপসংস্কৃতির ‘ভ্যালেন্টাইন’স ডে’ সহ সমাজ বিধ্বংসী অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করা এবং এগুলো উদযাপন করার উপর সম্পূর্ণভাবে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে দেশটির ইসলামি সরকার। সমাজ বিধ্বংসী এসব কাজকে অপরাধযোগ্য বলেও ঘোষণা করেছে সরকার। সেই সাথে এসব অনুষ্ঠানের সাথে সম্পর্কিত পণ্য বিক্রির অনুমতি নেই বলেও জানা গেছে।

স্থানীয়রা জানিয়েছে যে, ইমারতে ইসলামিয়ার নিরাপত্তা কর্মীরা ‘ভ্যালেন্টাইনস ডে’র এই দিনটিকে সামনে রেখে কয়েকদিন ধরেই রাজধানী সহ দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরগুলোতে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করেছেন। অন্যান্য কর্মক্ষেত্রে যেসব পণ্য বিক্রি হয়, দোকানদার-দেরকে এই দিনগুলোতেও স্বাভাবিক রুটিনে পণ্য বিক্রির নির্দেশ দিয়েছেন।

এই বিষয়ে আফগান প্রশাসনের সূত্র জানায় যে, ভ্যালেন্টাইন্স ডে এবং ক্রিসমাস সহ অন্যান্য পশ্চিমা দিবসগুলো কোন মুসলমান পালন করতে পারেন না। কেননা এসব দিবস শুধুমাত্র ভোগের উন্মাদনা সৃষ্টি করে।” যা সম্পূর্ণরূপে হারাম ও নিষিদ্ধ।

আফগানিস্তানে গত ২০ বছর যুদ্ধের পর, ১৫ আগস্ট তালিবান বাহিনী রাজধানী কাবুলে প্রবেশ করেন। এবং দেশটির প্রশাসনিক দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

ক্রুসেডার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সমর্থিত কাবুলের প্রাক্তন গোলাম প্রশাসন সরকারিভাবে “ভ্যালেন্টাইনস ডে” সহ পশ্চিমা দিবসগুলো উদযাপনের অনুমতি দিয়েছিল। যা দেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের হৃদয়ে ক্ষোভের জন্ম দিয়েছিল।

অপরদিকে তালিবান সরকার ক্ষমতায় আসার পর এসব পশ্চিমাদের আবিষ্কৃত সমাজ বিধ্বংসী দিবসগুলোকে নিষিদ্ধ করতে শুরু করেছেন। যা ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের হৃদয়ে প্রশান্তি দান করছে।

4 মন্তব্যসমূহ

  1. ‘শরীয়ত নয়, সংবিধান মানতে হবে’, হিজাব বিতর্কে মন্তব্য যোগীর
    অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ১১:৪৯ এএম

    নির্বাচনী উত্তাপের মাঝেই হিজাব বিতর্কে মুখ খুললেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। তিনি বলেন, শরীয়ত নয়, দেশের সংবিধান মেনে চলতে হবে। একইসঙ্গে, এই দেশে মৌলবাদের শাসন কোনওদিন স্থাপন হবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

    সংবাদ সংস্থা এএনআই-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে আদিত্যনাথ বলেন, “শরীয়ত নয়, দেশের সংবিধান মেনে চলতে হবে। গজওয়া-ই-হিন্দ (ইসলামিক ভারত) স্থাপন করার স্বপ্ন প্রলয় আসা পর্যন্ত সত্যি হবে না। সম্প্রতি এআইএমআইএম দলের নেতা তথা সাংসদ আসাদউদ্দিন ওয়েইসি মন্তব্য করেছিলেন যে একদিন হিজাব পরিহিত মহিলা দেশের প্রধানমন্ত্রী হবেন।

    সেই মন্তব্যের জবাব দিয়ে গোরক্ষনাথ মঠের প্রতাপশালী পুরোহিত যোগী বলেন, “এটা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নতুন ভারত। এখানে উন্নয়ন হবে, তুষ্টিকরনের রাজনীতি নয়। তিন তালাক প্রথা তুলে দিয়ে মহিলাদের স্বাধীনতা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী মোদি। দেশের মেয়েদের সম্মান অক্ষুণ্ণ রাখতে আমরা বলি, প্রশাসন সংবিধান মেনে চলবে, শরীয়ত আইন মেনে নয়।”

    এদিকে, হিজাব ছাড়াও এদিন পশ্চিমবঙ্গে রাজনৈতিক সহিংসতার বিষয়টিও তুলে ধরেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী আদিত্যনাথ। তার দাবি, উত্তরপ্রদেশে শান্তিপূর্ণ ভোটদান হচ্ছে। কিন্তু বাংলায় নির্বাচন চলাকালীন ও ভোট পরবর্তী হিংসার ঘটনা সবার জানা। একইসঙ্গে, কংগ্রেসের বিরুদ্ধেও তোপ দাগেন তিনি। যোগীর কথায়, কংগ্রেস দলটিকে শেষ করে দিতে রাহুল ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধীই যথেষ্ট। সূত্র: এএনআই।

    0 0

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন

পূর্ববর্তী নিবন্ধসোমালিয়ায় মুজাহিদদের অসাধারণ সব হামলায় ১৪ এরও বেশি গাদ্দার সৈন্য হতাহত
পরবর্তী নিবন্ধবাক্‌ স্বাধীনতা নাকি এর আড়ালে অপরাধীদের রক্ষা করা?