শ্রাবণ মেলায় মুসলিমদের দোকান বসানোতে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে হিন্দুত্ববাদী ট্রাস্ট

মাহমুদ উল্লাহ

0
383

উত্তরপ্রদেশের আগ্রার শামশাবাদ রোডে অবস্থিত প্রাচীন স্থানের হিন্দুত্ববাদী ট্রাস্ট এক মুসলিম বিদ্বেষী ঘোষণা দিয়েছে। চলতি বছরের ১৮ জুলাই প্রাচীন রাজেশ্বরের দর্শনীয়স্থানে বিশাল মেলার আয়োজন করা হবে।

ট্রাস্টের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এই মেলাতে হিন্দুরা ছাড়া কোন মুসলিম ব্যবসায়ী দোকান দিতে পারবে না। স্বাভাবিকভাবেই মুসলিম ব্যবসায়ীদের চাপে ফেলতেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে হিন্দুত্ববাদী সন্ত্রাসী দল বিশ্ব হিন্দু পরিষদ।

তাদের দাবি শ্রাবণ মাসে মেলা চত্বরে কোনও মুসলিম দোকান তৈরি করতে পারবে না। এই ঘোষণা দিয়েছে মন্দিরের ট্রাস্টের সদস্য ও বিশ্ব হিন্দু পরিষদের কর্মকর্তা হিন্দুত্ববাদী জিতেন্দ্র দাইপুরিয়া। সে বলেছে এই উৎসবে মুসলিদের থেকে কেন হিন্দুরা ফল, ফুল ও অন্যান্য সামগ্রী কিনবে? মুসলিমরা দোকান করেন এবং হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন তাদের কাছ থেকে এসব সামগ্রী কেনে। এই বছর এই নিয়ম বন্ধ করা হচ্ছে। সে আরো বলেছে, শ্রাবণ মাসে লক্ষাধিক টাকা রোজগারের পরও মুসলিমরা হিন্দু ধর্মকে কলুষিত করার চেষ্টা করে, সুতরাং তা বরদাস্ত করা হবে না।

ট্রাস্টের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিরা আরও বলেছে, “যারা তালেবানী চিন্তাভাবনা করে, তাদের আমরা কীভাবে শ্রাবণ মাসে ব্যবসা করতে দেব। তাই আমরা শুধু রাজেশ্বর নয়, আগ্রার সমস্ত জায়গার ব্যাপারে প্রশাসনের কাছে অনুরোধ করছি যে শ্রাবন মাসে কোনও মুসলিম ধর্মের লোকদের দোকান বসাতে দেওয়া উচিত নয়।”

মুসলিম বিদ্বেষী এই ঘোষণায় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট নগর এ কে সিং তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নিয়ে উল্টো বলেছে যে, “রাজেশ্বর একটি অতি প্রাচীন স্থান। প্রতিটি স্থানের নিজস্ব রীতিনীতি এবং ঐতিহ্য রয়েছে। এমতাবস্থায় তারা যদি কোনো সিদ্ধান্ত নেয়, তবে তারা এই সিদ্ধান্ত নিতে স্বাধীন। সেখানে প্রশাসনের কিছু করার নেই।”

হিন্দুত্ববাদী নেতারা সবসময় চায় কিভাবে মুসলিমদের চাপে ফেলে দুর্বল বানাবে। তাই উলামায়ে কেরাম সকল মুসলিমকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সামাজিক-অর্থনৈতিক সকল সমস্যার সমাধান করার আহ্বান জানিয়েছেন।


তথ্যসূত্র:
——–
১. হিন্দু না হলে শ্রাবণ মেলায় দোকান দেওয়া যাবে না
https://tinyurl.com/33kkchj2

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন