পশ্চিমবঙ্গের ভাঙ্গারে চুরির সন্দেহে একজনকে হত্যা করা হয়েছে

0
77

চোর সন্দেহে আজগর মোল্লা নামে ৫০ বছর বয়সী এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। মৃত ব্যক্তি, চব্বিশ পরগনার ভাঙ্গার থানার অন্তর্গত ফুলবাড়ি এলাকার বাসিন্দা। ৭ জুলাই, রবিবার সকালে ভাঙ্গার বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

রবিবার সকালে আজগর মোল্লাকে চোর সন্দেহে আটক করা হয়। এরপর তাকে বেঁধে রেখে বেশ কয়েকজন মিলে মারতে থাকে। মারধরের পর আজগর অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং জ্ঞান হারান। কয়েকদিন ধরে একই অবস্থায় পড়ে থাকায় সন্দেহ হয় স্থানীয় বাসিন্দাদের। তাকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসেন আজগরের পরিবারের সদস্যরা। তারা জানান, কী কারণে এ ঘটনা ঘটেছে তা তারা জানেন না।

APDR(অ্যাসোসিয়েশন ফর প্রোটেকশন অফ ডেমোক্রেটিক রাইটস)এর সাধারণ সম্পাদক রঞ্জিত সুর বলেন, “বেশ কিছুদিন ধরে পশ্চিমবঙ্গে লিঞ্চিংয়ের ঘটনা ঘটছে। রাজ্যে প্রথম ঘটনা ঘটেছে দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার মগরাহাটে। এ ঘটনার কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। আমার মনে হয় লিঞ্চিংয়ের পিছনে একটি বড় চক্রান্ত কাজ করছে।”
তিনি আরও বলেন, “এত মারধরের ঘটনা ঘটেছে, তবুও পুলিশ কিছুই জানতে পারছে না। ফলে পুলিশের ভূমিকা রহস্যজনক। পুলিশ শুধু সচেতনতা প্রচার করেই তাদের কাজ করছে। তারা পুলিশের আসল কাজ করে না।”

স্থানীয়দের দাবি, কয়েকদিন ধরে ভাঙ্গার বাজারে চুরির ঘটনা ঘটছে। তাহলে পুলিশ কেন নজর রাখল না? পুরো ঘটনার পেছনে অন্য রাজনীতি ও ষড়যন্ত্র কাজ করছে।

সম্প্রতি পাঁচটি জেলা-উত্তর চব্বিশ পরগনা, দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা, হুগলি, বর্ধমান এবং পশ্চিম মেদিনীপুর-এ মব-লিঞ্চিং-এর ঘটনা ঘটেছে৷


তথ্যসূত্র:
1.West Bengal Sees Another Lynching: Man Killed in Bhangar Over Theft Suspicion, Two Arrested
– https://tinyurl.com/3ujc2u4b

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন

পূর্ববর্তী নিবন্ধফিলিস্তিনের জিহাদ || আপডেট – ৮ জুলাই, ২০২৪
পরবর্তী নিবন্ধকোটাবিরোধী আন্দোলনকারীর লাশ ফেলার হুমকি দিলো ছাত্রলীগ কর্মী