দেড়শ গাছ কেটে ফেলল সন্ত্রাসী আ.লীগ নেতা

0
268
দেড়শ গাছ কেটে ফেলল সন্ত্রাসী আ.লীগ নেতা

পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জে বন বিভাগের দেড়শ গাছ কেটে ফেলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী। এর প্রতিবাদ করায় বন বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মারধরের অভিযোগ উঠেছে ওই নেতার বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় দেবীগঞ্জ ফরেস্ট রেঞ্জের রেঞ্জ অফিসার মো. আনোয়ারুল ইসলাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে লিখিত অভিযোগ দেন।

লিখিত অভিযোগে জানা গেছে, গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী ও তার লোকজন কোনো নিয়ম না মেনেই শুক্রবার হঠাৎ করে দুটি এক্সকেভেটর মেশিন দিয়ে সেতু সংলগ্ন কয়েক শতক জমির বনভূমির গাছ উপড়ে ফেলেন। খবর পেয়ে রেঞ্জ অফিসারের নেতৃত্বে বন বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের বাধা দেন। এ সময় গিয়াস উদ্দিন চৌধুরীসহ তার লোকজন রেঞ্জ কর্মকর্তা আনোয়ারুল ইসলামসহ আবদুর রাজ্জাক সরকার, মোজাফ্ফর হোসেন, বাদশা মিয়া, মিজানুর রহমান, হযরত আলীকে কিল, ঘুষি ও লাঠি দিয়ে মারধর করে। পরে তারা কাটা গাছগুলো লুটে নিয়ে যান।

রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, নিয়মতান্ত্রিকভাবে গাছগুলো কাটলে আমাদের কোনো আপত্তি থাকার কথা না। তারা আমাদের না জানিয়েই গাছগুলো কেটে ফেলেন। খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে গেলে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গিয়াস উদ্দিন চৌধুরীসহ তার লোকজন আমাদের মারধর করেন।

দেবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী জানান, বিরোধীয় ওই জায়গাটুকু নদী বক্ষের জায়গা, বন বিভাগের নয়। সেখানে কিছু গাছপালা ছিল। এর ফলে নদীটির গতিপথ পরিবর্তন হয়ে গেছে। নদীর সেতুর দুই পাশের দেড়শ মিটার সংযোগ সড়ক ভেঙে গেছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন ওই সড়ক ব্যবহারকারী লাখো মানুষ। স্থানীয়দের দাবির মুখে মানুষের দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে সবার সিদ্ধান্তক্রমে নদীর গতিপথে বাধা হয়ে থাকা ওই অংশটুকু এক্সকেভেটর মেশিন দিয়ে খনন করে দেওয়া হয়েছে। আমাদের কেউ বন বিভাগের কর্মীদের মারধর করেনি বরং তারাই আমাদের এক্সকেভেটর চালকদের মারধর করতে উদ্যত হয়েছিল।

দেবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রত্যয় হাসান বন বিভাগের অভিযোগ প্রাপ্তির কথা স্বীকার করে জানান, সেখানে একটি ভুল বোঝাবুঝির ঘটনা ঘটেছে। আমি ঘটনাস্থলে ছিলাম না। গাছ কাটা ও মারধরের বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখছি। আমাদের সময়

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন