সন্ত্রাসী দল বিজেপির সিদ্ধান্তে ভারতের ২০ কোটি মুসলিম চরম ঝুঁকিতে: মার্কিন রিপোর্ট

0
605
সন্ত্রাসী দল বিজেপির সিদ্ধান্তে ভারতের ২০ কোটি মুসলিম চরম ঝুঁকিতে: মার্কিন রিপোর্ট

মুসলিমবিদ্বেষী সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন-সিএএ নিয়ে উদ্বেগজনক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে মার্কিন কংগ্রেসের থিংক ট্যাংক কংগ্রেসনাল রিসার্চ সার্ভিস-সিআরএস। হিন্দুত্ববাদী সন্ত্রাসী দল বিজেপির এমন সিদ্ধান্তে দেশটির ২০ কোটিরও বেশি মুসলিম ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে বলে তুলে ধরা হয়েছে।

ভারতের সংবাদ মাধ্যম আনন্দ বাজার পত্রিকার বরাতে জানা যায়, ১৮ ডিসেম্বর প্রকাশিত ওই রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে যে, স্বাধীন ভারতের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো দেশের স্বাভাবিক নাগরিকত্বের প্রক্রিয়ায় একটা ধর্মীয় শর্ত যুক্ত করা হয়েছে।

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন নিয়ে সিআরএসের প্রথম রিপোর্টে বলা হয়েছে, “ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার যে ন্যাশনাল রেজিস্টার অব সিটিজেন্স (এনআরসি) তৈরির পরিকল্পনা নিয়েছে, সেটার পাশাপাশি সিএএ (সিটিজেনশিপ অ্যামেন্ডমেন্ট অ্যাক্ট) গ্রহণের ফলে ভারতের প্রায় ২০০ মিলিয়ন মুসলিম সংখ্যালঘুদের মর্যাদার উপর সেটা নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে”।

সিটিজেনশিপ (অ্যামেন্ডমেন্ট) অ্যাক্ট অনুসারে, পাকিস্তান, বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান থেকে ২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বরের আগে যে সব অমুসলিম শরণার্থীরা ভারতে এসেছে, তাদেরকে ভারতের নাগরিকত্ব দেয়া হবে।

সিআরএস তাদের দুই পাতার প্রতিবেদনে বলেছে, “ভারতের ১৯৫৫ সালের নাগরিকত্ব আইনে অবৈধ অভিবাসীদের ভারতের নাগরিক হওয়ার পথে বাধা রয়েছে। ১৯৫৫ সালের পর এই আইনটি বহুবার সংশোধিত হলেও কখনও এতে ধর্মীয় শর্ত যুক্ত করা হয়নি”।

সিএএ’র বিরোধীরা সতক্য করে দিয়ে বলেছেন যে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং তার ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠতাবাদ অর্জনের চেষ্টা করছে, মুসলিম-বিরোধী এজেন্ডা নিয়ে কাজ করছে এবং ভারতের আনুষ্ঠানিক সেক্যুলার মর্যাদাকে হুমকির মুখে ঠেলে দিয়েছেন এবং আন্তর্জাতিক মানবাধিকারের নীতিমালা লঙ্ঘন করছেন। সরকারিভাবে মার্কিন কংগ্রেসের রিপোর্ট না হলেও সিআরএসের এই রিপোর্ট বানানো হয়েছে কংগ্রেস সদস্যদের সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশের মতামতের ভিত্তিতেই বলে খবর প্রকাশ করেছে ভারতের একাধিক সংবাদমাধ্যম।

মোদির হিন্দুত্ববাদী সরকার ধর্মকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ্য করা হয়েছে। বলা হয়েছে, ‘বহু বিশেষজ্ঞের ধারণা, দেশের উত্তরোত্তর ঝিমিয়ে পড়া অর্থনীতি থেকে মানুষের নজর অন্য দিকে ঘুরিয়ে রাজনৈতিক সমর্থন ধরে রাখতে বিজেপি সরকার এখন আবেগের ওপরেই গুরুত্ব দিচ্ছে। হাতিয়ার করছে ধর্মকে।’

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘ভারত শুধুই বিদেশি আগ্রাসনকারীদের হাতে লুণ্ঠিত হয়েছে, এভাবে সে দেশের ইতিহাসটাকে ব্যাখ্যা করতে চাইছে হিন্দু জাতীয়তাবাদীরা। শুধু এভাবেই বিষয়টিকে তারা দেখছে। দেখাতে চাইছে।’

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন