যুক্তরাষ্ট্রে ৫ বছরে সন্ত্রাসী পুলিশের হাতে নিহত ১৬৫৩ কৃষ্ণাঙ্গ

1
512
যুক্তরাষ্ট্রে ৫ বছরে সন্ত্রাসী পুলিশের হাতে নিহত ১৬৫৩ কৃষ্ণাঙ্গ

যুক্তরাষ্ট্রে ২০১৪ থেকে ২০১৯ সালের মধ্যে অন্তত ১৬৫৩ জন কৃষ্ণাঙ্গ খুন হয়েছে পুলিশের হাতে। এই খুনগুলোর অধিকাংশ ক্ষেত্রেই খুনি পুলিশের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নেওয়া সম্ভব হয়নি। দেশটির নিম্ন আদালতে অভিযুক্ত পুলিশকে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হলেও সুপ্রিম কোর্টে তারা মুক্তি পেয়ে যায়। এই মুক্তি পাওয়ার পেছনে সুপ্রিম কোর্টে পুলিশের শক্তিশালী ইউনিয়নের প্রভাবকে দায়ী করা হচ্ছে।

উল্লিখিত পাঁচ বছরে যে খুনগুলো হয়েছে তার চেয়েও বেশিসংখ্যক কৃষ্ণাঙ্গ পুলিশের হাতে মারা গেছেন বলে দাবি অনেক মানবাধিকার সংগঠনের।

সম্প্রতি কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা যুক্তরাষ্ট্র পুলিশের হাতে নিহত কৃষ্ণাঙ্গদের মধ্য থেকে উল্লেখযোগ্য কয়েকজনের বিস্তারিত নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। প্রতিবেদনে ২০১৪ সালে অ্যান্ডারসন নামে এক কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার বিষয় উল্লেখ করা হয়।

বলা হয়, স্কট অলড্রিজ ও ব্রায়ান মায়ের নামে দুই পুলিশের হাতে নির্মমভাবে মারা যান তানিশা অ্যান্ডারসন নামের ৩৭ বছর বয়সী এক কৃষ্ণাঙ্গ নারী। ওই ঘটনায় আদালত পুলিশ অলড্রিজকে ১০ দিনের জন্য সাসপেন্ড করে এবং মায়েরকে শুধু লিখিত সতর্কতামূলক নোটিস দেয়। এর বাইরে ওই হত্যা নিয়ে কোনো আলোচনাই হয়নি। একই বছর মাইকেল ব্রাউন নামে ১৮ বছর বয়সী অপর এক কৃষ্ণাঙ্গকে হত্যা করে এক শ্বেতাঙ্গ পুলিশ। ব্রাউন রাস্তায় তার বন্ধুর সঙ্গে হাঁটছিলেন। ওই অবস্থায় তাকে গুলি করে পুলিশ। ওই ঘটনায় দায়ী পুলিশের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।

তামির রাইস নামে ১২ বছর বয়সী এক কৃষ্ণাঙ্গ পার্কে বসে একটি খেলনা বন্দুক নিয়ে খেলছিল। পুলিশ অফিসার টিমোথি লোহম্যান খেলনা বন্দুক হাতে তামিরকে গুলি করে হত্যা করেন। এই হত্যাকাণ্ড নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের মিডিয়ায় কিছু সমালোচনা হলেও দায়ী পুলিশ টিমোথির বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।

এরকি গার্নার রাস্তায় খোলা সিগারেট বিক্রি করছিলেন। অফিসার ড্যানিয়েল প্যান্টেলিও গার্নারকে গ্রেপ্তার করতে উদ্যত হন। তখন উভয়ের মধ্যে ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে গার্নারের কণ্ঠরোধ করে ড্যানিয়েল। তখন মোট ১১ বার গার্নারকে বলতে শোনা যায় ‘আমি শ্বাস নিতে পারছি না’। মারা যান গার্নার। ওই ঘটনায় ড্যানিয়েলের বিরুদ্ধে মামলা হয় এবং শাস্তি হিসেবে তাকে রাস্তা থেকে সরিয়ে ডেস্কে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

২০১৫ সালে জ্যানিশা ফনভিল নামে এক তরুণ কৃষ্ণাঙ্গকে নিজ বাসায় হত্যা করে অ্যান্থনি হলজহাউয়ার ও শন শেফিল্ড নামে দুই শ্বেতাঙ্গ পুলিশ। ঘটনার সময় জ্যানিশার হাতে একটি ছুরি ছিল। ওই ছুরি থাকার কারণেই তাকে পুলিশ গুলি করে হত্যা করে।

১টি মন্তব্য

  1. এই হলো বিশ্বের সুপার পাওয়ার আমেরিকা ।
    এই হলো বিশ্বের কথিত সভ্য আমেরিকা ।

    হে আল্লাহ! তুমি সারাবিশ্বের মুজাহিদীন ভাইদের সুস্হতা এবং নিরাপত্তা দান করো ।
    এবং আল-ফিরদাউস মিডিয়ার সকল ভাইদেরকে সুস্হতা এবং নিরাপত্তা দান করো এবং ভাইদেরকে তোমার দ্বীনের জন্য কবুল কর ।
    আমিন….ছুম্মা আমিন……

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন