হিন্দুত্ববাদীদের দাবিকৃত অর্থ দিতে না পারায় এখনো আগ্রার জেলে কাশ্মীরি ছাত্ররা

1
850
হিন্দুত্ববাদীদের দাবিকৃত অর্থ দিতে না পারায় এখনো আগ্রার জেলে কাশ্মীরি ছাত্ররা

আগ্রার একটি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের তিন কাশ্মীরি ছাত্র আরশাদ ইউসুফ, ইনায়েত আলতাফ শেখ এবং শওকত আহমেদ গানাই। গত অক্টোবরে বিশ্বকাপের ম্যাচে পাকিস্তানের বিজয় উদযাপন করার অভিযোগে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ আনা হয়।

যদিও এটা কোন অপরাধই নয়, তবুও হিন্দুত্ববাদীরা মুসলিম বিদ্বেষের কারণে তিন কাশ্মীরি ছাত্র আটক করে হিন্দুত্তবাদি পুলিশ। বহু কষ্টে এলাহাবাদ হাইকোর্ট থেকে তাদের জামিন মঞ্জুর করা হয়।

কিন্তু হিন্দুত্ববাদিী আদালত তাদের পরিবারের কাছে মোটা অংকের টাকা দাবি করে। জামিনের বন্ড জমা দেওয়ার মতো টাকা না থাকায় তারা এখনও কারাগার থেকে বের হতে পারেননি।

শওকতের বাবা শাবান আহমেদ গণাই বলেছেন, “একটু জমি ছাড়া আমাদের আর কিছুই অবশিষ্ট নেই। আমরা আমাদের ছেলের সাথে দেখা করতে এবং আইনি খরচের জন্য আগ্রা যাওয়ার জন্য টাকা ধার নিয়েছিলাম। এমনকি টাকা জোগাড় করার জন্য আমরা আমাদের গরু বিক্রিও করেছি, কারণ আমাদের সন্তান সবকিছু থেকেও প্রিয়।”

তিনি আরো বলেন, “আমরা উত্তর কাশ্মীরের বান্দিপোরা জেলায় জীর্ণশীর্ণ একতলা বাড়িতে বাস করি। শওকত ছোটবেলা থেকেই মেধাবী ছাত্র। সে বুদ্ধিমান ছিল এবং তার বেশিরভাগ সময় অধ্যয়নে ব্যয় করত।”

আগ্রার আরবিএস কলেজের তিনজন মুসলিম ছাত্র কখনোই কল্পনাও করতে পারেনি যে, তাদের অভিনন্দনমূলক হোয়াটসঅ্যাপ স্ট্যাটাস তাদের এতটাই সমস্যায় ফেলবে যে, তাদের পরিবারকে তাদের জেল থেকে বের করে আনতে তাদের সম্পত্তি বিক্রি করতে হবে। তাদের লেখাপড়ার এমন মূল্যবান সময় জেলে কাটাতে হবে। আরশাদ সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র, আর ইনায়েত ও শওকত তাদের চতুর্থ বর্ষে।

আরশাদের মামা বিলাল আহমেদ দার বলেছেন “আমরা আত্মীয়দের খুঁজে পেতে ৬জন ব্যক্তিকে বিপুল পরিমান রুপি দিয়েছি।  তাদের মুক্তি নিশ্চিত করার জন্য তাদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ১ লাখ টাকা দেওয়া হয়েছে।।”

তবুও জামিন সিস্টেমের অধীনে, কোনো আসামি যদি আদালতে হাজির না হয় বা জামিনের শর্ত ভঙ্গ করে, তাহলে আদালত কর্তৃক বন্ডে নির্ধারিত পরিমাণ অর্থ প্রদান করতে হয়। আমরা সে টাকা দিতে পারছি না।

পরিচয় প্রকাশে অনিচ্ছুক ছাত্রদের একজনের আত্মীয় বলেছেন, “আমরা আমাদের সন্তানদের সাথে দেখা করার জন্য কাশ্মীর থেকে আগ্রা যাওয়ার সামর্থ্য রাখি না। আমরা একজন আইনজীবীও নিয়োগ করতে পারিনি। আমাদের দৈনন্দিন খরচ মেটানো কঠিন। আরশাদ একজন এতিম, যে শুধুমাত্র পড়াশোনা করতে পারত এ কারণ যে, সে সরকারি বৃত্তি পেয়েছিল।”

“আরশাদের বাবা একজন শ্রমিক যিনি বহু বছর আগে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান। কলেজ কর্তৃপক্ষ সিসিটিভি ফুটেজ পরীক্ষা করে দেখেছে যে, তারা পাকিস্তানপন্থী বা আপত্তিকর কোন স্লোগান দেয়নি,” বলেছেন আরশাদের চাচা বিলাল আহমেদ দার।

তাদের অবিলম্বে মুক্তির সুবিধার্থে, হয় পরিবারগুলিকে অবশ্যই নগদ জামিন জমা দিতে হবে, অথবা উত্তরপ্রদেশের যে কোনও বাসিন্দাকে অবশ্যই তাদের জামিন বন্ডে স্বাক্ষর করতে হবে৷ তিনজনের প্রতিনিধিত্বকারী আইনজীবী মধুবন দত্ত চতুর্বেদী বলেন, “সমস্যা হল তিনজনের পরিবারের সদস্যরা খুবই দরিদ্র, তারা জামানত হিসাবে ছয় লাখ টাকা জমা দেওয়ার মতো অবস্থায় নেই৷”

“আমাদের ছয়টি জামিনের ব্যবস্থা করতে বলা হয়েছে। চূড়ান্ত রায় না হওয়া পর্যন্ত এই ছয়জনের অ্যাকাউন্টে টাকা আটকে রাখা হবে। এমন ছয়জনকে খুঁজে পাওয়া সত্যিই কঠিন,” বলেছেন ইয়াসির পল, আরশাদের ঘনিষ্ঠ আত্মীয়।

২৬ অক্টোবর ২০২১-এ, আরশাদ, ইনায়েত এবং শওকতকে ভারত-পাকিস্তান (T20) টি টুয়েন্টি বিশ্বকাপ ম্যাচের পরে তাদের কলেজ থেকে সাসপেন্ড করা হয়। পাকিস্তানপন্থী স্লোগান সম্পর্কে বিজেপি যুব নেতার অভিযোগের ভিত্তিতে আগ্রা পুলিশ তাদের গ্রেপ্তার করেছে, যদিও ছাত্র হোস্টেলের ওয়ার্ডেন এবং কলেজের কর্মকর্তারা এই দাবির প্রত্যাখান করেছিলেন।  প্রাথমিকভাবে তাদের বিরুদ্ধে গোষ্ঠীর মধ্যে শত্রুতা প্রচার এবং অন্যান্য অভিযোগে অভিযুক্ত করা হয়েছিল, কিন্তু পরে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ যুক্ত করা হয়।

শওকতের মা হাফিজা বেগম বলেন, ছেলের লেখাপড়ার জন্য তিনি সবকিছু ত্যাগ করেছেন। তাকে শিক্ষিত করার স্বপ্ন পূরণ করতে তিনি তার জমি বিক্রি করেছিলেন, কিন্তু তার গ্রেপ্তার তাকে ভেঙে দিয়েছে।  টার ভাষায়, “আমাদের কাছে জামিনের বন্ড এবং আরও আইনি খরচের জন্য টাকা নেই।”

জামিন পরিবারগুলির জন্য একটি বিশাল স্বস্তি, তবে আর্থিক সংকটের কারণে শিক্ষার্থীরা এখনও কারাগারের বন্দী রয়েছে।  তিনজনকে অন্য কয়েদিদের থেকে দূরে আলাদা কক্ষে বন্দী করা হয়েছে। তাদের আলাদা করার জন্য যে অজুহাত দেওয়া হয়েছিল তা ছিল গত বছর আদালত প্রাঙ্গণে হয়রানি।

গত নভেম্বরে, যখন তাদের আগ্রার একটি আদালতে পেশ করা হয়েছিল, তখন হিন্দুত্ববাদী কর্মীরা পুলিশ উপস্থিত থাকা সত্ত্বেও তাদের মারধর করে এবং হেনস্থা করে। আগ্রার আইনজীবী সমিতিগুলি তাদের রক্ষা করতে অস্বীকার করে এবং তাদের আইনি সহায়তা প্রত্যাখ্যান করার জন্য একটি প্রস্তাব পাস করে।  ২৭ অক্টোবর থেকে তারা কারাগারে রয়েছেন।

 “জেলে থাকা তিনজনের ওপরই অনেক বেশি ক্ষতি হয়েছে… তারা শারীরিক ও মানসিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়েছে।  তারা অসহায়ভাবে কাঁদে।  তারা হতাশাগ্রস্ত এবং উদ্বিগ্ন এবং জিজ্ঞাসা করেছিল তারা কতক্ষণ সেখানে থাকবে,” বলেছেন ইনায়েতের একজন চাচাতো ভাই যিনি কারাগারে তিনজনকে দেখতে গিয়েছিলেন।

এভাবেই হিন্দুত্ববাদীদের পাশবিকতা ও জিঘাংসার বলি হয়ে এমন করুন পরিস্থিতির মধ্যে দিনাতিপাত করছেন ভারতের অসহায় মুসলিমরা। একে একে সকল দিক থেকে তাদেরকে চেপে ধরছে বর্বর হিন্দুত্ববাদীরা; মুসলিম গণহত্যা বাস্তবায়নের পূর্বে এভাবেই মুসলিমদের চরম্ভাবে কোণঠাসা করছে তারা।


প্রতিবেদক :   উসামা মাহমুদ


 

তথ্যসূত্র:

1.
Too Poor to Afford Bail, Kashmiri Students Languish in Agra Jail

https://tinyurl.com/bdhfbpxw

https://tinyurl.com/4sjem7rz

১টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন