মুসলিমদের জোর করে ‘জয় শ্রী রাম’ বলিয়ে কান ধরে উঠবস করালো উগ্র হিন্দুরা

0
112

ভারতে উত্তর প্রদেশে কয়েকজন বয়স্ক মুসলিমদের জোর করে শিরকী বাক্য ‘জয় শ্রী রাম’ বলতে বাধ করেছে উগ্র হিন্দু যুবকরা। একইসঙ্গে তাদের চরমভাবে অপমান করে কান ধরে উঠবসও করানো হয়েছে।

উত্তর প্রদেশের গোন্ডায় তিন মুসলিম ফকিরের সঙ্গে দুর্ব্যবহারের ভিডিও প্রকাশ্যে এসেছে। সেখানে হিন্দু যুবকরা লাঠি উঁচিয়ে তাদের জোর করে ‘জয় শ্রী রাম’ বলতে বাধ্য করে। কানপুরের সহিংসতার কথা উল্লেখ করে তাদেরকে সন্ত্রাসী বলেও গালি দেয়। সাথে চলে কান ধরে উঠবস করানোও।

ঘটনাটি উত্তর প্রদেশের গোন্ডার খড়গুপুর ডিঙ্গুর গ্রামের; যেখানে দুই যুবক ও একজন বুজুর্গ ব্যক্তি ঘুরে বেড়াচ্ছিলেন। এ সময় প্রথমে এক হিন্দু যুবক তাদের থামায়। তারপর কয়েকজন মিলে মুসলিম ব্যক্তিদের হয়রানি করতে শুরু করে। প্রথমে তাদের নাম-ঠিকানা জিজ্ঞেস করে। এবং ‘আধার কার্ড’ দেখাতে বলে। সব সময় সবাই তো আর আধার কার্ড নিয়ে ঘুরে না, তাই তারাও দেখাতে পারেন নি।

সাথে সাথে আঁধার কার্ড দেখাতে না পারায় ক্ষিপ্ত হয় ওই উগ্র হিন্দুরা তাদের সাথে অইরকম অপমানজনক আচরণ করে। গ্রামে তাদেরকে আর না ঘুরতেও হুমকি দেয় ঐ হিন্দু সন্ত্রাসীরা। গ্রামের অন্য হিন্দুদেরকেও ঐ উগ্র হিন্দু যুবকদের সমর্থন করতে দেখা যায়। ওই ঘটনার ভিডিও করে তাদেরই কেউ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করেছে। কারণ তারা জানে যে, মুসলিমদের সাথে যা ইচ্ছা তাই করতে পারবে তাঁরা, কেউ তাদেরকে কিচ্ছু বলবে না। আর হিন্দুত্ববাদী প্রশাসন তাদের পক্ষেই থাকবে।

ভিডিওতে অনেককে তাদের গালিগালাজ করতে দেখা যায়। অনেক মানুষের কণ্ঠস্বর স্পষ্ট শোনা যায়। অবশেষে তাদের গ্রাম থেকে বিতাড়িত করা হয়।

এমন ঘটনা এর আগেও ঘটিয়েছে হিন্দুত্ববাদী উগ্র সন্ত্রাসীরা। ২০২১ সালের ১০ অগাস্ট কানপুরের বাররা এলাকায় জোর করে একজন মুসলিম ই-রিকশা চালককে ‘জয় শ্রী রাম’ ধ্বনি দিতে বাধ্য করা হয়। ওই ঘটনায় সেসময়ে উগ্রহিন্দুত্ববাদী ‘বজরং দল’-এর নাম উঠে এসেছিল। ঘটনার পর প্রায় একমাস ধরে এলাকায় উত্তেজনাকর পরিবেশ বিরাজ করছিল।

২০২১ সালের ১২ জুলাই উন্নাওতে, মাদ্রাসার শিশুদের ‘জয় শ্রী রাম’ ধ্বনি দেওয়ানোর ঘটনা প্রকাশ্যে আসে। এখানে মাদ্রাসার ছাত্ররা বিকেলে নামাজ পড়ার পর ক্রিকেট খেলতে যায়। এ সময় চারজন তাদেরকে মারধর করে এবং ‘জয় শ্রী রাম’ ধ্বনি দেওয়ার জন্য চাপ দেয়। ওই ঘটনায় শিশুদের জামাকাপড় ছিঁড়ে দেওয়া হয় এবং তাদের সাইকেল ভাঙচুর করা হয়।

২০১৪ সালে প্রথমবারের মতো মোদি সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে এ পর্যন্ত এমন ঘটনা ঘটেছে কয়েকশত। এসব ঘটনায় নিহত হয়েছে কয়েকডজন নিরপরাধ মুসলিম। আহতের সংখ্যাও নিতান্ত কম নয়; শতাধিক। এসবের কোনোটিরই বিচার হয়নি আদালতে। খুনিরা দিনেদুপুরে ঘুরে বেড়াচ্ছে বুক উঁচু করে। আর বিজেপি নেতারা বলছে, এসব ‘বিচ্ছিন্ন ঘটনা’।

উগ্র হিন্দুরা যখন জয় শ্রীরাম ধ্বনি তুলে একের পর এক মুসলিমকে খুন করছে, তখন মুসলিমরা তাকবির ধ্বনি তুলে এই নির্যাতন প্রতিরোধ করবে- এই হিম্মতটুকুও হারিয়ে ফেলেছে। যদিও পবিত্র কোরআনে আল্লাহ্‌ তাআলা মুসলিমদের জানিয়ে দিয়েছেন যে, যারা জুলুমের শিকার, এবং যাদের উপর অত্যাচার করা হয়েছে, তাঁরা তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে পারবে। আয়াতটি হল –

أُذِنَ لِلَّذِينَ يُقَاتَلُونَ بِأَنَّهُمْ ظُلِمُوا وَإِنَّ اللَّهَ عَلَى نَصْرِهِمْ لَقَدِيرٌ

ইসলামি চিন্তাবীদরা তাই কোরআনের এই আহ্বানে সাড়া দিয়ে নববি মানহাজ অনুযায়ী মুসলিমদেরকে নিজেদের জান-মাল-ইজ্জত-আব্রুর হেফাজত করতে প্রতিরোধের প্রস্তুতি নিতে বলেছেন। কেননা অত্যাচারের মোক্ষম জবাব দেওয়া না হলে এবং প্রতিরোধ গড়ে না তুললে অত্যাচারিরা নিজে থেকে নিবৃত হয় না।


প্রতিবেদক :   উসামা মাহমুদ


তথ্যসূত্র :

1. Watch Modi loving, Hindu extremists assault three Muslim pan handlers in Uttar Pradesh, while hurling Islamophobic abuse and forcing them to chant, “Praise Lord Ram.”
https://tinyurl.com/mv2t6s3f
2. video link
https://tinyurl.com/2eu8pxae
3. Uttar Pradesh: Muslim Fakirs Harassed, Called ‘Jihadis’ and ‘Terrorists’
https://tinyurl.com/2p88aym8

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন