বেসামাল বাজারঃ নিত্যপণ্যের অসহনীয় মূল্য

0
917
বেসামাল বাজারঃ নিত্যপণ্যের অসহনীয় মূল্য

নিত্যপণ্যের বাজার ক্রেতা সাধারণের অনুকূলে আসছেই না। এমনিতেই গত সাড়ে তিন মাস ধরে বাজারে পেঁয়াজ কিনতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন ক্রেতারা; এর অতিরিক্ত হিসেবে ভোজ্যতেল ও চিনির দাম বেড়েছে অস্বাভাবিক হারে।

গত এক মাস ধরে ভোজ্যতেলের দাম ভোক্তার সামর্থ্যরে বাইরে চলে গেছে আর চলতি অর্থবছরে বাজেটে কর বাড়ানোর অজুহাতে চিনির দাম বাড়ানো হয়েছে কেজিতে সাত-আট টাকা। টিসিবি বলছে, গত এক মাসে বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম বেড়েছে ২ দশমিক ৬৯ শতাংশ আর খোলা সয়াবিনের দাম বেড়েছে ৫ দশমিক ৪৫ শতাংশ। শুক্রবার রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে নিত্যপণ্য কিনতে আসা একাধিক ভোক্তা যুগান্তরকে বলেছেন, একের পর এক নিত্যপণ্যের দাম বাড়ানো হচ্ছে, সরকারি ছত্রছায়ায় ব্যবসায়ীরা ছক করে প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়িয়ে চলেছে। তারা ভোক্তাদের পকেট থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে হাজার কোটি টাকা, অথচ সংশ্লিষ্টদের এ বিষয়ে মাথাব্যথা নেই।

বস্তুত, নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির কারণে দেশের নাগরিক সমাজের মধ্যে ক্ষোভ ও হতাশার সৃষ্টি হয়েছে। ক্যাব বলছে, আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যের মূল্য স্থিতিশীল রয়েছে। তাই যদি হয়, তাহলে এদেশে পণ্যের মূল্যবৃদ্ধির যৌক্তিক কারণ থাকতে পারে না। আসলে পুরোটাই কারসাজি। এ কারসাজির মাধ্যমে সরকারের পৃষ্টপোষকতায় ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে অতি মুনাফা করছে।

পেঁয়াজের আকাশছোঁয়া মূল্যের কারণে ভোক্তারা ভুগেছে মাসের পর মাস। এখন যদি অন্যান্য নিত্যপণ্যের মূল্যও অস্বাভাবিক হারে বাড়তে থাকে, তাহলে স্বল্প আয়ের মানুষদের ভোগান্তির সীমা থাকবে না। সমাজের একটি বড় অংশ হল নিচু আয়ের মানুষ। নিত্যপণ্যের মূল্য যখন বাড়ে, তখন কিন্তু তাদের আয় বাড়ে না। স্বল্প আয় দিয়েই তাদের মোকাবেলা করতে হয় পরিস্থিতি এবং তা করতে গিয়ে তাদেরকে পড়তে হয় অসহনীয় বিড়ম্বনায়।

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন