সোমালিয়ায় আশ শাবাব মুজাহিদিনের ইস্তিশহাদী হামলা

0
722
সোমালিয়ায় আশ শাবাব মুজাহিদিনের ইস্তিশহাদী হামলা

আফ্রিকার পূর্বাঞ্চলীয় দেশ সোমালিয়ার কেন্দ্রীয় শহর গালকায়োতে সরকার দলীয এক র‍্যালিতে মুজাহিদিন ইস্তিশহাদী বোমা হামলা চালিয়েছেন। হামলায় ১৪ জন মুরতাদ সেনা নিহত হয়েছে। দেশের নতুন প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ হুসেন রোবেল সেখানে আসার কিছুক্ষণ আগেই ঘটনাটি ঘটেছিল।

শাহাদাহ নিউজ এজেন্সির সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার (১৮ ডিসেম্বর)দেশটির একটি স্টেডিয়ামে প্রবেশপথে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

বিস্ফোরণে নিহতদের মধ্যে সোমালি সেনাবাহিনীর কিছু উচ্চ পদস্থ অফিসারও রয়েছে। মুজাহিদগণ তাদের সংক্ষিপ্ত পরিচয় উল্লেখ করেছেন।

মধ্য অঞ্চলে অবস্থিত সোমালি সেনাবাহিনীর ২১ নাম্বার বিভাগের কমান্ডার জেনারেল আবদুল আজিজ গোজি দাকারি এবং তার সহকারী কর্নেল আহমেদ বার্লাভ নিহত হয়েছে।

এছাড়া মধ্য অঞ্চলগুলিতে আমেরিকান প্রশিক্ষিত সোমালি বিশেষ বাহিনীর কমান্ডার কর্নেল মুখতার আব্বী আদম এবং তার সহকারী ক্যাপ্টেন মার্শো মেরি নিহত হয়েছে।

তেমনিভাবে গ্যালাকাইওর সাবেক পোন্টল্যান্ডের মেয়র ইয়াসিন টোমী নিহত হয়েছে। যে সম্প্রতি মার্কিন গোয়েন্দা বিভাগে কাজ করেছিল। হামলায় প্রধানমন্ত্রীর কয়েক ডজন দেহরক্ষী ও তাঁর সাথে আসা অফিসাররা আহত হয়েছে। অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেছে মুরতাদ প্রধানমন্ত্রী।

হারাকাতুশ শাবাব  মুজাহিদিনের সামরিক মুখপাত্র শেখ আবদুল আজিজ আবু মুসাব হাফিজাহুল্লাহ হামলার দায় স্বীকার করেছেন,  তিনি এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলেছেন: “গত শুক্রবার মুজাহিদিন গালকায়ো শহরে ইস্তিশহাদী হামলা করেছিল, যার লক্ষ্য ছিল ধর্মত্যাগের শাস্তিস্বরুপ প্রধানমন্ত্রীকে হত্যা করা। ধর্মত্যাগী প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানানোর জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিল এমন সময় সরকারের সিনিয়র অফিসার এবং আধিকারিকদের একত্রিত হওয়ার মাঝে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়েছিল। এ অভিযানে ১৪ জন ধর্মত্যাগী নিহত হয়েছিল, যাদের মধ্যে ৫ জন কর্মকর্তা ও তাদের রক্ষী ছিল।

সামরিক মুখপাত্র আরো বলেছেন: “ধর্মত্যাগী জেনারেলদের মধ্যে গোজি দাকারি, সে মুসলমানদের ক্ষতি করার জন্য পরিচিত, সে আগে আমেরিকান ক্রুসেডার বাহিনীর সাথে কাজ করেছিল এবং এখন সে অ্যাওস্টেট আর্মির ২১ নাম্বার বিভাগের কমান্ডার ছিল।

সামরিক মুখপাত্র আরো বলেছেন: “এছাড়াও এই অভিযানে আমেরিকা এবং তার সহকারী দ্বারা প্রশিক্ষিত বাহিনীর কমান্ডার মুখতারকে হত্যা করা হয়েছে।

এই মুখতার মুসলমানদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদী হামলা চালাচ্ছিল এবং মধ্যরাতে  তাদের বাড়িতে হয়রানিমূলক অভিযান চালাত।

 এই আক্রমণটিতে একই দিনে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গকে হারিয়ে সোমালি সরকার মারাত্মক ধাক্কা খেয়েছে।

 

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন