প্রথম আলো’র মাঝে শার্লি হেবদোর প্রতিচ্ছবি

0
1047
প্রথম আলো’র মাঝে  শার্লি হেবদোর প্রতিচ্ছবি

কুফফারদের দালাল দেশীয় মিডিয়ার গুলোর মধ্যে প্রথমেই নাম আসে “দৈনিক প্রথম আলো”-র। দীর্ঘদিন যাবত একনিষ্ঠ ভাবে কুফফারদের দালালি করে আসছে এই মিডিয়াটি। তুচ্ছতাচ্ছিল্য করে আসছে ইসলামের নানা বিধি-বিধানকে। যেখানে তালিবানের বিজয় মুসলিম উম্মাহর হৃদয়ে প্রশান্তি এনে দিয়েছে, সেখানে প্রথম আলো’সহ এই ধরণের সেকুলার মিডিয়াগুলো ব্যস্ত, নবগঠিত ইসলামিক ইমারতের ছিদ্রান্বেষণে। আফিম চাষ, নারী অধিকার, ইসলামি শস্তির বিধান (হদ) ও রাষ্ট্র গঠনের নানা দিক নিয়ে একের পর এক মিথ্যাচার করেই চলেছে।

এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল ২৪ সেপ্টেম্বর প্রথম আলো “শাস্তি হিসেবে অঙ্গচ্ছেদ ফেরাচ্ছে তালেবান” শিরনামের একটি প্রতিবেদনে ইসলামের অকাট্য বিধানকে অবমাননাকর  সাব্যস্ত করে। যেখানে, চুরি-ডাকাতি বন্ধে ইসলামের শাস্তির বিধানকে অবমাননা বলা হয়েছে। সেই সাথে কুরআন সুন্নাহ-য় উল্লেখিত ইসলামের শাস্তির বিধান স্পষ্টভাবে বলার কারণে ইসলামিক ইমারত অফ আফগানিস্তানের ধর্মীয় পুলিশের প্রধান মোল্লা নুরুউদ্দিন তোরাবিকে অসম্মান করা হয়েছে।

উল্লেখ্য দোহা চুক্তি অনুযায়ী আফগানিস্তানের সকল মুজাহিদদের নাম কালো তালিকা থেকে মুছে ফেলার শর্ত থাকলেও, জাতিসংঘ নামক ‘ভাঁড়’ সংঘের নিষিদ্ধ তালিকায় এখনো রয়েছে ইসলামিক প্রশাসনিক বিষয়ে অভিজ্ঞ এই ধর্মীয় নেতার নাম।

ইসলামের প্রথম যুগে মুহাম্মাদ ﷺ আল্লাহ তায়ালা প্রদত্ত যে শস্তির বিধানাবলী প্রয়োগের মাধ্যমে মক্কার জাহেলি সমাজে ফিরিয়ে এনেছিলেন শান্তির সুবাতাস। আজ সেই একই বিধান ইসলামিক ইমারত প্রয়োগ করতে গেলে সেটাকে বলা হচ্ছে বর্বরতা। এর মাধ্যমে প্রথম আলো পরোক্ষভাবে মুহাম্মাদ ﷺ- কে বর্বর প্রমাণ করতে চাইছে। আসলে এই ধরনের সেকুলার মিডিয়াগুলো চোর-ডাকাত, ছিনতাইকারী ও দখলদাদের পক্ষ নিয়ে নিজেদের স্বার্থসিদ্ধিতে ব্যস্ত। এদের কছে সত্য, ন্যয়, আদল, ইনসাফের কোন মূল্য নেই।

উল্লেখ্য যে, ২০১৫ সালে ফ্রান্সের রঙ্গ ম্যাগাজিন শার্লি হেবদো মুহাম্মাদ ﷺ-কে নিয়ে ব্যঙ্গাত্মক কার্টুন প্রকাশ করে। যা বিশ্বের প্রতিটি নবী প্রেমীর হৃদয়ে তা আঘাত হানে। ফলে ঐবছরের ৭ই জানুয়ারি দুইজন মুসলিম শার্লি হেবদোর হেডকোয়ার্টারে হামলা চালান।  এতে নিহত হয় শার্লি হেবদোর  কার্টুনিস্টসহ মোট ১২ জন রাসূল অবমাননাকারী, আহত হয় আরো ১১ জন শাতিমে রাসূল। স্বশস্ত্র সংগঠন আল-কায়েদা এই হামলার দায় স্বীকার করে।

বিশ্লেষকগণের মতে, প্রথম-আলোর এই ধরনের ইসলাম বিদ্বেষী প্রতিবেদন, ধর্মীয় বিধানাবলীর অবমাননা, কটাক্ষ, ইসলামিক ইমারত সম্পর্কে এমন মিথ্যাচার উপমহাদেশের এই জমিনে তাদের অবস্থানকে সন্দিহান করে তুলেছে। প্রথম আলোর মাঝে  যেন  শার্লি হেবদোরই প্রতিচ্ছবি দেখা যাচ্ছে।

প্রথম আলোর প্রতিবেদন: শাস্তি হিসেবে অঙ্গচ্ছেদ ফেরাচ্ছে তালেবান- https://tinyurl.com/2zx2fjsj

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন