আজ দিল্লিতে যা হচ্ছে, আগামীকাল তা বাংলাদেশেও হবে!

0
956

দিল্লিতে মালাউন সন্ত্রাসীদের হামলায় লাফিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যা৷ দিল্লিতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাড়িয়েছে ৩৪৷ আহত ৪০০ জনেরও বেশি বলে জানিয়েছে এনডিটিভি, রয়টার্স। তবে প্রকৃত সংখ্যা আল্লাহ তায়ালাই ভাল জানেন। তবে হিন্দুত্ববাদী সন্ত্রাসীদের এই গণহত্যা শুধু দিল্লিতে সীমাবদ্ধ থাকবে না কেননা যেহেতু মালাউন মোদি সরকারের পলিসি হল অখণ্ড ভারতে রাম রাজত্ব প্রতিঠ্ঠা করা, তাই আজ দিল্লিতে যা হচ্ছে, আগামীকাল তা অবশ্যই বাংলাদেশেও হবে। এটা আপনি নিশ্চিত থাকতে পারেন। হতে পারে বাংলাদেশ মুসলিম সংখ্যাগরিঠ্ঠ, কিন্তু ক্ষমতার কলকাঠি যদি দিল্লি থেকে নিয়ন্ত্রিত হয়, তাহলে আপনি সংখ্যাগরিঠ্ঠ হয়েও কিছু করতে পারবেন না। ৫টা মালাউন সংখ্যালঘু পুলিশি পাহারায় আপনার বাড়িয়ে লুটপাট চালাবে, আপনাকে পিঠিয়ে মারবে, আপনার সামনে আপনার মা, স্ত্রী, বোন, মেয়েকে ধর্ষণ করবে, ঠিক যেমন ৩দিন ধরে দিল্লিতে চলছে। ঘটনার পর রটিয়ে দিবে আপনি সংখ্যালঘু অত্যাচারকারী, রাষ্ট্রদোহী ইত্যাদি। তাই আপনাকে উচিত শিক্ষা দেয়া হয়েছে। তখন দেশের নামধারী সুশীল নামের কুশীল অসাম্প্রদায়িক লোকজন আপনাকে সাইজ করার জন্য পুলিশকে বাহবা দিবে। যেমনটা বর্তমানে কোন আলেমকে বা কোন মুসলিমকে পুলিশি হয়রানির পর টেরোরিষ্ট হিসেবে চালিয়ে দেওযা হয়।

আজ দিল্লি জ্বলছে শুধু জ্বলছে বললে ভুল হবে বরং বলতে হবে মুসলিমেদের জ্বালিয়ে দিচ্ছে। আজ হিন্দুদের বাড়িগুলো গেরুয়া পতাকা ও জাফরান কালি দিয়ে আলাদা করা হচ্ছে যাতে ভুল করে কেউ হিন্দুদের বাড়িতে আক্রমন না করে। এটা ঠিক গুজরাটের মডেলই করা হচ্ছেযেখানে মুসলমানদের এভাবেই গণহত্যা করা হয়েছিল।

আজ ‍মুসলিমদের মসজিদ পুড়িয়ে দিচ্ছে, মাইক খুলে ফেলছে, মসজিদের মিনারায় মালাউনদের হনুমান মার্কা গেরুয়া পতাকা লাগিয়ে দিচ্ছে।

তবে এধরণের পরিস্থিতির জন্য কিন্তু আপনিই দায়ী।কারণটা একটু খেয়াল করে দেখুন-যারা এধরণের ঘটনা ঘটাতে পারে তারা কিন্তু ঠিকই প্রস্তুতি নিচ্ছে। কিন্তু আপনি পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য কি কোন প্রস্তুতি নিচ্ছেন?

স্বাভাবিকভাবেই পরিক্ষার আগে যে ভালভাবে প্রস্তুতি নেয় সে পরিক্ষায় ভাল রেজাল্ট করে। প্রস্তুতি না নিয়ে পরিক্ষায় ফেল করে অন্যের দ্বারা নাযেহাল হয়ে, আমাকে বাচান বাচান বলে চিৎকার করলে কোন লাভ হবে না। কেননা আপনি নিজেই নিজের উপর সুবিচার করেন নি।

আজকে দিল্লির মালাউনদের গণহত্যার দেখে বাংলাদেশের মানুষের উচিত কিছুটা হলেও প্রস্তুতি নেয়া।

হে আমার মুসলিম ভাই আর কত নিশ্চুপ থাকবে? আর কত দেখেও না দেখার ভান করে থাকবে?

দিল্লির এই ঘটনাগুলো যে গাযওয়াতুল হিন্দের বার্তা দিচ্ছে তা তুমি না বুঝলেও হিন্দুরা ঠিকই বুঝতে পারছে। মনে রেখ-সালাউদ্দিন কিংবা মুহাম্মদ বিন কাসিম আবার জীবিত হয়ে আসবেন না। কিন্তু ঠিকই আল্লাহ তায়ালা তার দ্বীনকে সাহায্য করবেন। বিজয়ী করবেন কারো না কারো মাধ্যমে। শুধু প্রশ্ন থেকে যাবে, তুমি দ্বীনের জন্য-মাজলুম উম্মাহের জন্য কতটুকু করেছ??


লেখক: উসামা মাহমুদ, প্রতিবেদক, আল-ফিরদাউস নিউজ।

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন