করোনা প্রতিরোধে নিরাপদ নন বাংলাদেশের চিকিৎসক-নার্সরাই

0
1264

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর টোলারবাগে প্রাণ হারানো বৃদ্ধকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়েছেন যে চিকিৎসক, তিনিও আক্রান্ত হয়েছেন (করোনা পজিটিভ)। রবিবার রাতে চিকিৎসকের পারিবারিক বন্ধু ডা. শরীফ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘যে বৃদ্ধ মারা গেছেন তার চিকিৎসা দিয়েছেন আক্রান্ত ডাক্তার। গতকাল (শনিবার) সকাল থেকেই তার সমস্যা শুরু হয়েছিল। আজ (রবিবার) দুপুর নাগাদ শ্বাসকষ্ট শুরু হয়।

উল্লেখ্য, তিনি ডেল্টা হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক হিসেবে টোলারবাগের ওই বৃদ্ধকে চিকিৎসা দিয়েছিলেন। তার পরিবারের সদস্যরা এখনও হোম কোয়ারেন্টিনে আছেন।
এর আগে বৃদ্ধের মৃত্যুর পর তার চিকিৎসায় নিয়োজিত ওই হাসপাতালের চার চিকিৎসক, ১২ জন নার্স ও তিনজন স্টাফকে হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। তাদেরই একজন চিকিৎসক করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হন। জানা যায়, রবিবার (২২ মার্চ) তার স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রতিবেদন পাওয়া গেছে। তাতে এই তথ্য পাওয়া যায়।

কারণ কোনো রকম পার্সোনাল প্রোটেকশন ইক্যুইপমেন্ট (পিপিই) ছাড়াই চিকিৎসা কার্যক্রম চালাতে হচ্ছে বিভিন্ন হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসকদের। নার্সসহ অন্যান্য স্টাফদেরও নেই নিরাপত্তামূলক কোনো ব্যবস্থা। এ অবস্থায় চরম ঝুঁকির মধ্যে পড়তে যাচ্ছেন তারাসহ সাধারণ রোগীরাও।

চিকিৎসকরা বলছেন, শুধু নিজেদের সুরক্ষার জন্য নয়, রোগীসহ অন্যদের সুরক্ষার জন্য পিপিই লাগবে। সবাই আতঙ্কের মধ্যে আছে, সবার পরিবার আছে। কেউ আক্রান্ত হলে পরিবারও আক্রান্ত হবে। তাই চিকিৎসকরা কোয়ারেন্টাইনে চলে গেলে জনবল সংকট দেখা দেবে।

বাংলাদেশের স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) রোববারে দেয়া তথ্য অনুযায়ী, এ পর্যন্ত দেশে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ২৭ জন। সঠিক আল্লাহ তায়ালাই ভাল জানেন। তাদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে তিনজন। এছাড়া করোনাআক্রান্ত সন্দেহে কোয়ারেন্টাইনে আছেন ১৭ হাজার মানুষ। যদিও গত ১৫ দিনে বিদেশ থেকে দেশে ফিরেছে প্রায় ১ লাখ ৭০ হাজার বাংলাদেশি।

উল্লেখ্য, কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে গত শনিবার মারা যাওয়া মিরপুরের টোলারবাগের ওই বৃদ্ধ ছিলেন দেশে করোনায় আক্রান্ত দ্বিতীয় রোগী। তবে তিনি বা তার পরিবারের কেউ বিদেশ থেকে না আসায় এই ঘটনায় কমিউনিটি ট্রান্সমিশন স্বীকার করে নিয়ে জরুরি অবস্থা ঘোষণার দাবি ওঠে। তবে বিষয়টি নিঃসন্দেহ হতে আরও সময় চেয়েছে আইডিসিআর। যদিও ওই ব্যক্তির মৃত্যুর পর তার এক প্রতিবেশী পরদিন রবিবার (২২ মার্চ) রাতে মারা যান।

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন