খোরাসান | তালেবান মুজাহিদদের হামলায় ৮৫ কাবুল সৈন্য নিহত ও আহত

0
566
খোরাসান | তালেবান মুজাহিদদের হামলায় ৮৫ কাবুল সৈন্য নিহত ও আহত

আল-ফাতাহ অপারেশনের ধারাবাহিতায় মুরতাদ কাবুল বাহিনীর উপর ৩টি সফল অভিযান পরিচালনা করেছেন তালেবান মুজাহিদিন। গত ১৪ নভেম্বর পরিচালিত এসব হামলায় অন্ততপক্ষে ৮৫ কাবুল সৈন্য হতাহত হয়েছে।

বিস্তারিত রিপোর্ট অনুযায়ী, গত ১৪ নভেম্বর রাত সাড়ে আটটায়, আফগানিস্তানের হেলমান্দ প্রদেশের গারশাক জেলা হয়ে কান্দাহার যাওয়ার পথে মুরতাদ কাবুল প্রশাসনের ভাড়াটে সেনাবাহিনীর একটি ব্যাটালিয়ন টার্গেট করে কৌশলগত বোমা বিস্ফোরণ ঘটান তালেবান মুজাহিদিন। এরপর ভয়ে মুরতাদ সৈন্যরা এদিক ওদিক ছুটতে শুরু করলে মুজাহিদগণ সেনাদের টার্গেট করে ফায়ারিং শুরু করেন। যার ফলে মুরতাদ বাহিনীর অস্ত্রশস্ত্র ও গুলাবারোদ ভর্তি ৩টি যান ধ্বংস এবং ২৩ মুরতাদ সৈন্য নিহত হয়।

অপরদিকে হেলমান্দ প্রদেশের রাজধানী লস্করগাহ এবং ডোভার ময়দান এলাকায় গত তিনদিন যাবৎ ক্রুসেডার মার্কিন বাহিনীর সহায়তায় মুরতাদ কাবুল সরকারের কমান্ডো, পুলিশ এবং সেনাসদস্যরা তালেবান নিয়ন্ত্রিত এলাকা দখরে নেওয়ার চেষ্টা করছে। মুজাহিদিনরাও ওই এলাকায় মুরতাদ ভাড়াটে শত্রু বাহিনীকে টার্গেট করে ভারী ও হালকা অস্ত্র দ্বারা হামলা চালাচ্ছেন। যার ফলে শুধু গত ১৪ নভেম্বরের লড়াইয়ে মুরতাদ বাহিনীর ২১ সৈন্য নিহত এবং ১৩ সৈন্য আহত হয়েছে। বিপরীতে আহত হয়েছেন ৫ জন মুজাহিদ। মুরতাদ বাহিনী এখনো পর্যন্ত মুজাহিদদের নিয়ন্ত্রিত কোন এলাকায় অগ্রগতি করতে পারেনি।

এমনিভাবে গতরাতে মুজাহিদীনরা কুন্দুজ প্রদেশের ইমাম সাহেব জেলার বালা-হিসার এলাকায় অবস্থিত কাবুল বাহিনীর সেনা ঘাঁটিতে ভারী অস্ত্র ও লেজার বন্দুক দ্বারা তীব্র হামলা চালিয়েছেন। যার ফলস্বরূপ সামরিক কেন্দ্রটি সম্পূর্ণরূপে বিজয় করেন মুজাহিদগণ।

জানা গেছে যে, এই যুদ্ধে মুরতাদ বাহিনীর ৪টি ট্যাঙ্ক, ২টি আর্টিলি শেল এবং ২টি অত্যাধুনিক যানবাহন ধ্বংস হয়েছে। এছাড়াও মুজাহিদগণ মুরতাদ বাহিনীর কমান্ডারসহ ১৮ সৈন্যকে হত্যা, ১০ সৈন্যকে আহত এবং ৪ সৈন্যকে ঘাঁটি থেকে জীবিত বন্দী করেছেন।

IMG-20200930-184648-407-1601617351717

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন