হিন্দু পুলিশকে বিয়ে করতে অস্বীকার করায় গুলি করে বাবাকে খুন

0
241
সুবিধামত ফন্ট ছোট বড় করুনঃ

ভারতে মধ্যপ্রদেশের শাজাপুর জেলায় হিন্দু পুলিশ কনস্টেবল সুভাষকে বিয়ে করতে অস্বীকার করায় মুসলিম পরিবারের উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। ক্ষুব্ধ সুভাষ বন্দুক নিয়ে মুসলিম নারী শিবানী খানের বাড়িতে পৌঁছায়। সেখানে তাকে, তার বাবা ও ভাইকে গুলি করে সে। গুলিতে শিবানী খানের বাবা জাকির খান নিহত হন। গুরুতর আহত শিবানী ও তার ভাই রাজকে ইন্দোরে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

হামলার পরে পুলিশ কনস্টেবল সুভাষ একজনের ছবি দিয়ে ফেসবুকে লিখেছে, ‘আমি ব্যর্থ হয়েছি, তাই এমন করেছি’। সুভাষ দেওয়াসে পুলিশ সদর দপ্তরে কনস্টেবল এবং ডিএসপির ড্রাইভার ছিল।

শাজাপুরের এসপি যশপাল সিং রাজপুত বলেছে, এক কনস্টেবল এক নারীকে বিবাহের প্রস্তাব দেয়। তাকে বিয়ে করতে অস্বীকার করায় মেয়ে ও তার বাবা, ভাইকে গুলি করে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মেয়েটির বাবা মারা যায়।

উল্লেখ্য, হিন্দুরা মুসলিম নারীদের ছলে বলে কৌশলে প্রেমের ফাদে ফেলে ধর্মান্তর ও বিয়ে করতে চায়। মুসলিম নারীরা তাতে রাজী না হলেই উগ্র হিন্দুরা মুসলিম নারী ও তার পরিবারে উপর হামলা চালায়। এটাকে তারা বাগওয়া জিহাদ নাম দিয়েছে। তাদের এই অপকর্ম ঢাকতে কাল্পনিক লাভ জিহাদের অপবাদ মুসলিমদের উপর চাপিয়ে দিয়েছে। মুসলিমদের দ্বীন থেকে দুরে সরে যাওয়ার সুযোগে এখন হিন্দুত্ববাদীরা মুসলিমদের উপর চড়াও হচ্ছে অহরহ।

তথ্যসূত্র:
——-
1. मज़हब की वजह कर शादी से इंकार किए जानें से नाराज़ प्रेमी, पुलिस कॉन्स्टेबल सुभाष खराड़ी प्रेमिका शिवानी खान के घर 2 बजे रात में बंदूक लेकर पहुंचा।
https://tinyurl.com/yfpta2k2

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন

পূর্ববর্তী নিবন্ধব্যবসায়ীদের সহযোগিতা করতে প্রস্তুত ইসলামি ইমারত : আব্দুল গনি বারাদার
পরবর্তী নিবন্ধফটো রিপোর্ট || শাবাবের শীর্ষ নেতাদের দীর্ঘ ৮ দিনের পরামর্শ সভার সমাপনী দৃশ্য ও ভিডিও