ফাইল না ছাড়ার জন্য হিসাবরক্ষককে ‘পেটালেন’ মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান

0
207
ফাইল না ছাড়ার জন্য হিসাবরক্ষককে ‘পেটালেন’ মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান

চট্টগ্রামের কর্ণফুলীতে ফাইল না ছাড়ায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের (এলজিইডি) অফিস ভাঙচুর ও হিসাব রক্ষককে মারধরের অভিযোগ উঠেছে উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে।

রবিবার দুপুরে কর্ণফুলী উপজেলা পরিষদের এলজিইডি অফিসে এ ঘটনা ঘটে।

এলজিইডি অফিসের হিসাবরক্ষক রফিকুল ইসলাম জানান, ২০২৯-২০ অর্থ-বছরের ঠিকাদারদের ১০ শতাংশ জামানত ফেরতের জন্য কয়েকটি ফাইল প্রক্রিয়াধীন ছিল। তার মধ্যে কর্ণফুলী উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বানাজা বেগম নিশির একটি ফাইলও ছিল।

তিনি অফিসে এসে ফাইলটির খবর জানতে চান। এসময় ফাইল প্রসেসিং করে ছাড়া হবে বলে জানাই আমি। অন্যদিকে উপজেলা প্রকৌশলীর শাশুড়ির অসুস্থতার কারণে তিনি অফিসে আসেননি।

কিছুক্ষণ পর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান তার স্বামীসহ কয়েকজনকে নিয়ে অফিসে ঢুকেন।

এরপর ফাইলটি কেন ছাড়া হয়নি এই বলে আমাকে মারধর ও অফিসের কম্পিউটার ভাঙচুর করেন। ঘটনার সময় উপজেলা চেয়ারম্যান ফারুক চৌধুরীও উপস্থিত ছিলেন। বিষয়টি কর্ণফুলী থানার ওসিসহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের (এলজিইডি) উপজেলা প্রকৌশলী জয়শ্রী দে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, খুবই দুঃখজনক ঘটনা। কাজ না দেখে ফাইল ছাড়া সম্ভব না।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের সাথে বৃহস্পতিবার আমার কথা হয়েছে। যত দ্রুত সম্ভব ফাইলটি ছেড়ে দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছিলাম। এরপরও আমার অনুপস্থিতিতে অপ্রীতিকর একটি ঘটনা ঘটালেন। বিষয়টি উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউএনও ও ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি।

তবে অফিস ভাঙচুর ও হিসাব রক্ষককে মারধরের ঘটনা অস্বীকার করে উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বানাজা বেগম নিশি বলেন, ফাইলটি ছাড়ার জন্য আমার কাছ থেকে ঘুষ চেয়েছেন এজন্য হিসাবরক্ষকের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে উপজেলা চেয়ারম্যান ফারুক চৌধুরী ও ইউএনও নোমান হোসেনের মোবাইলে ফোন করা হলেও তাদের সাড়া পাওয়া যায়নি। বিডি প্রতিদিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন