আ’লীগ-যুবলীগ নেতার হামলায় নিহত আপন চাচা

0
646
আ’লীগ-যুবলীগ নেতার হামলায় নিহত আপন চাচা

ঢাকার আশুলিয়ায় আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতা মজিবর রহমান পলান, যুবলীগ নেতা রিয়াজ উদ্দিন পলান ও মোহসিন পলানের নেতৃত্বে তাদের আপন চাচা আফাজ উদ্দিন পলানকে (৭৫) পিটিয়ে আহত করার পর রোববার রাত সাড়ে ১১টায় তিনি নিহত হয়েছেন। চলাচলের রাস্তা নিয়ে বিরোধের জের ধরে শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টায় ওই হামলার ঘটনা ঘটে।

স্বজন ও প্রত্যক্ষদর্শীরা আহত আফাজ উদ্দিনকে দ্রুত উদ্ধার করে প্রথমে সাভার থানা কমপ্লেক্স, পরে রাজধানীর পঙ্গু হাসপাতাল থেকে শেষে নুরজাহান মেডিক্যালে নিয়ে যায়। সেখানে নুরজাহান মেডিক্যালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

ঘটনায় থানায় অভিযোগ করা হলেও হত্যার সাথে জড়িত কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি বলে নিহতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে।

হত্যায় জড়িতরা হলেন ইয়ারপুর ইউনিয়ন ৩ নম্বর ওয়ার্ড তাজঁপুর এলাকার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মজিবর রহমান পলান, তার ভাই মোহসিন পলান, যুবলীগ ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন, মজিবর রহমানের ছেলে ফেরদৌস, স্ত্রী ফিরোজ বেগম, মোহসিনের স্ত্রী লতা বেগম।

এ ব্যাপারে নিহত আফাজ উদ্দিনের ছেলে সাত্তার বলেন, আমাদের জমির উত্তর পাশ দিয়ে চলাচলের জন্য একটি রাস্তা বিবাদীদের দিয়েছি। বর্তমানে তারা বাড়ির সামনে দিয়ে আরো একটি রাস্তা দাবি করছে। ওই রাস্তা আমরা দিতে না চাইলে শুক্রবার তারা হামলা চালিয়ে আমার বড় ভাই মোক্তার হোসেনকে মারধর করতে থাকে।

তিনি বলেন, এসময় রাস্তার পাশে দোকানে বসা আমার বাবা আফাজ উদ্দিনের ওপর লাঠি সোটা নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়লে বাবা মাটিতে লুটিয়ে পড়েন ও তার বাম পায়ের উরু ভেঙ্গে যায়। এছাড়া তার গোপন অঙ্গে লাথি মেরে অচেতন করে ফেলে হামলাকারীরা।

এ অবস্থায় তার স্বজন ও প্রত্যক্ষদর্শীরা তাকে দ্রুত উদ্ধার করে সাভার হাসপাতাল, রাজধানীর পঙ্গু ও নুরজাহান মেডিক্যালে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার রাত সাড়ে ১১টায় তিনি নিহত হন।

সাত্তার আরো বলেন, ঘটনায় তারা থানায় অভিযোগ দিলেও পুলিশ ঘটনাস্থলে আসেনি। উল্টো থানায় মামলা দিয়ে হাজতে ঢুকিয়ে দেয়ার ভয়-ভীতি দেখিয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। নয়া দিগন্ত

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন