ইসরাইলের পশ্চিম তীর দখল: জরুরি বৈঠক আরব লীগের

1
486
ইসরাইলের পশ্চিম তীর দখল: জরুরি বৈঠক আরব লীগের

ইহুদীবাদী সন্ত্রাসী রাষ্ট্র ইসরাইল ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরকে নিজেদের সাথে অবৈধ সংযুক্তিতে কি পদক্ষেপ নেওয়া হবে এব্যাপারে বৈঠকে বসছেন আরব রাষ্ট্রসমূহের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা।

ইহুদীবাদী অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইল পশ্চিম তীর বা এর কিছু অংশকে নিজেদের অবৈধ ভূখণ্ডে সংযুক্ত করলে আরব রাষ্ট্রগুলি কী কী পদক্ষেপ নিতে পারে এবং কী কী পদক্ষেপ এক্ষেত্রে ফলপ্রসূ হবে তা নিয়ে বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল) আরব পররাষ্ট্রমন্ত্রীগণ জরুরী বৈঠকে বসতে যাচ্ছেন।

রবিবার(২৭ এপ্রিল) কায়রোতে এক বিবৃতিতে আরব লীগের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল হোসাম জাকি বলেছেন,”ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত এই বৈঠকে ইসরাইলি পরিকল্পনা মোকাবেলায় ফিলিস্তিনি নেতৃত্বকে রাজনৈতিক, আইনী ও আর্থিক সহায়তা প্রদানের বিভিন্ন উপায় নিয়ে আলোচনা করা হবে”।

শুধু তাই নয়,”করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে ক্ষতির সম্মুখীন হওয়া ফিলিস্তিন সরকার কিভাবে ক্ষতি থেকে মুক্তি পেতে পারে এবং ইসরাইলের আক্রমণাত্মক সিদ্ধান্ত ফিলিস্তিনের ট্যাক্স রাজস্ব হস্তান্তরের ব্যাপারে ইসরাইলের নিয়ন্ত্রণ থেকে উত্তরণের উপায় কি” তা নিয়েও আলোচনা করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

জাকি আরও যোগ করেছেন যে সেক্রেটারি-জেনারেল আহমেদ আবুল গাইত গত কয়েকদিন ধরে বিশেষ করে জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের সাথে যোগাযোগ করেছেন।

আবুল গাইত ইসরাইলী কর্তৃপক্ষকে “কোভিড-১৯ নামক নতুন মহামারী মোকাবিলার ক্ষেত্রে ‘বিশ্বব্যাপী উদ্বেগকে’ ব্যবহার করার বিপদ সম্পর্কে সতর্ক করেছিলেন” এবং অধিষ্ঠিত ফিলিস্তিনি অঞ্চলগুলিকে একত্রিত করে তাদের উপরে ইহুদীবাদী অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের সার্বভৌমত্ব ঘোষণা করার জন্য অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের এই অপতৎপরতাকে বৈশ্বিক উদ্বেগ হিসেবে আখ্যায়িত করেছিলেন।

আবুল গাইত এসময় জাতিসংঘকে তার নিজ দায়িত্ব সততার সাথে পালনের আহ্বান জানিয়েছেন এবং অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের ইসরাইলী সরকার সমগ্র অঞ্চলে আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা ও সুরক্ষার জন্য কী করতে চায় তা গুরুত্বের সাথে পর্যবেক্ষণে রাখার আহ্বান জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, আরবলীগ এখন পর্যন্ত ফিলিস্তিনের ভাগ্য উন্নয়নে কোন কার্যকরী পদক্ষেপ নিতে পারেনি। অনেক আরব রাষ্ট্রের সাথে বর্তমানে ইহুদিবাদী সন্ত্রাসী ইসরাইলের যোগসাজশ রয়েছে। জাতিসংঘ মুখে শান্তির কথা বললেও ইসরাইলের বিরুদ্ধে সর্বপ্রকার কার্যকরী পদক্ষেপ নিতে এখনও পর্যন্ত প্রচেষ্টা চালায়নি।

সুত্র : ইনসাফ টুয়েন্টিফোর ডটকম।

১টি মন্তব্য

  1. আমি মনে করি ইসলাম বিরোধীদের সাথে কুটনৈতিক চাল চেলে কোন উপকার হবেনা।কারণ,আমরা জাতি সংঘ বলি আর যাই বলি সবই হচ্ছে ওদের অনুগত। তাই কোন কুটনৈতিক কর্মকাণ্ড পরিচালনা না করে কেবল সামরিক ভাষায় , অস্ত্রের ভাষায় ওদের সাথে কথা বলা উচিৎ।

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন