শরণার্থী রোহিঙ্গা মুসলিমদের উপর হিন্দুত্ববাদী মোদি প্রশাসনের দমন-পীড়ন

1
421

হিন্দুত্ববাদী মোদি প্রশাসন কাশ্মীরে রোহিঙ্গা শরণার্থী মুসলিমদের উপর দমন-পীড়ন চালাচ্ছে। তাদের “অবৈধ” বাসিন্দা, “পরজীবী” এবং জাতীয় “নিরাপত্তার হুমকি” বলে অভিহিত করছে।

ভারত-দখলকৃত কাশ্মীরের দক্ষিণাঞ্চলীয় জম্মু শহরে ১৫০ জন রোহিঙ্গা শরণার্থীকে আটক করে ভারতীয় হিন্দুত্ববাদী পুলিশ। তাদের সাথে ১২বছর বয়সী ইনায়েত রেহমানের মা ও বোনকে ও আটক করার এক বছরেরও বেশি সময় হয়ে গেছে। এখনো সে তার মা বোনকে ফিরে পায়নি।

স্থানীয় হিন্দুত্ববাদী রাজনীতিবিদ এবং হলুদ মিডিয়া রিপোর্টে তাদেরকে “অবৈধ” বাসিন্দা, “পরজীবী” এবং জাতীয় “নিরাপত্তা হুমকি” বলে অভিহিত করে। মুসলিম জাতি গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে ক্রমাগত প্রোপাগান্ডা চালানোর পর তাদের গ্রেফতার করা রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সরকার ক্র্যাকডাউন শুরু করে।

জাতিসংঘের হিসাব মতে, প্রায় ৪০,০০০ রোহিঙ্গা মুসলিম জীবন বাঁচাতে মিয়ানমার থেকে ভারতে পালিয়েছে, তাদের বেশিরভাগই ২০১৭ সালে যখন তাদের বিরুদ্ধে বৌদ্ধ সন্ত্রাসীরা যখন দেশটিতে সামরিকভাবে মুসলিম নির্মুল অভিযান শুরু করে তখন আসেন। জাতিসংঘ বলেছে, “গণহত্যার অভিপ্রায়ে” সন্ত্রাসীরা এই ক্র্যাকডাউন চালানো হয়েছে। যদিও জাতিসঙ্ঘ নামের কুফরী সঙ্ঘটিও মুসলিম গণহত্যা বন্ধে কোন পদক্ষেপ নেয়নি।

শরণার্থীরা, যাদের মধ্যে অনেকেই রাজধানী নয়াদিল্লি সহ ভারতের বেশ কয়েকটি শহরে শিবির এবং বস্তিতে আশ্রয় নেয়। তাদের মধ্যে প্রায় ৫০০০ জন রেহমানের পরিবার সহ জম্মুতে বসতি স্থাপন করে।

কিন্তু মা ও বোনকে আটক করে মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোর জন্য স্থানীয় কারাগারে পাঠানোর পর রেহমান এখন একা। সে বলেছে “আমি আমার মাকে মিস করি। …আমার মা এবং বোনকে নিয়ে যাওয়ার পরে আমাদের বাড়িটিও ভেঙে দেওয়া হয়।”

বিচ্ছেদের ভয়

মুসলিমদের বিরুদ্ধে দমন-পীড়ন এবং নির্বাসনের কারণে আরও অনেক রোহিঙ্গা তাদের পরিবারের সদস্যদের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

এই বছরের মার্চ মাসে, ৩৭ বছর বয়সী হাসিনা বেগম, তার তিন সন্তান এবং স্বামী থেকে বিচ্ছিন্ন হয়েছিলেন এবং জম্মুর হীরা নগর কারাগারে বছরব্যাপী আটক থাকার পর তাকে মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো হয়েছিল, যেখানে রেহমানের পরিবারের সদস্যরাও আটক রয়েছে।

আরেক রোহিঙ্গা মুসলিম, জাফর আলমকেও আটক করা হয় এবং সম্প্রতি মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো হয়। তিনি তার ছয় সন্তান এবং স্ত্রী থেকে আলাদা হয়ে যান।

কাশ্মীরে রোহিঙ্গা মুসলিম

রাইটস অ্যান্ড রিস্কস অ্যানালাইসিস গ্রুপ (RRAG), নয়াদিল্লি ভিত্তিক একটি স্বাধীন অধিকার গোষ্ঠীর মতে,”অবৈধ প্রবেশের” অভিযোগে বর্তমানে অন্তত ৩৫৪ জন রোহিঙ্গাকে ভারতে আটক রাখা হয়েছে। জম্মুতে এই ধরনের আটকের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি।

রোহিঙ্গা অধিকার গোষ্ঠীগুলি আল জাজিরাকে বলেছে, যে ভারত সরকার ২০১৭ সাল থেকে ১৭ শরণার্থীকে নির্বাসিত করেছে। এবং অ-প্রত্যাহার নীতি লঙ্ঘন করে আরও বেশি নির্বাসনের পরিকল্পনা করছে। আর তা হল শরণার্থীদের এমন জায়গায় নির্বাসিত করা উচিত নয় যেখানে তারা নিপীড়নের মুখোমুখি হতে পারে।

রেহমানের প্রতিবেশী বলেছেন যে তার মা তাকেও আটক করার জন্য পুলিশের কাছে অনুরোধ করেছিলেন যাতে পরিবার এক সাথে আটক থাকতে পারে। কিন্তু তারা তা প্রত্যাখ্যান করেছে।

প্রকৃতপক্ষে, মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোর ভয়ের চেয়ে শরণার্থীদের মধ্যে পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার ভয় বেশি। ভয়টি অনেককে জম্মু ছেড়ে যেতে বাধ্য করেছে, অনেক পরিবার নিশ্চিত নয় যে তাদের গন্তব্য তাদের পরবর্তী কোথায় পৌঁছাবে

মুহাম্মদ আরিফ বলেন, “আমাদের অধিকাংশই চলে যাওয়ার পরিকল্পনা করছি,” তিনি আরো বলেন, যে রোহিঙ্গা পরিবারগুলি “নিদ্রাহীন রাত” কাটাচ্ছে, ভয়ে যে পুলিশ যে কোনো সময় তাদের আটক করতে পারে। “পুলিশ আসার পর ঝুপড়ি খালি করা হয়। মানুষ তাদের সন্তানদের থেকে বিচ্ছিন্ন হতে চায় না যেমনটি ইতিমধ্যেই অনেকে হয়েছে। বিচ্ছেদ এই ক্র্যাকডাউনের সবচেয়ে অমানবিক অংশ,” বলেন আরিফ, তিনি তিন ছোট বাচ্চার বাবা।

আরিফ ২০১২সালে তার বাবা, ভাই এবং কাজিনদের সাথে জম্মুতে আসেন। চলতি বছরের ১ এপ্রিল তার বাবা, ভাই এবং তার দুই চাচাতো ভাইকে আটক করে হীরা নগর কারাগারের একটি ডিটেনশন সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয়।

“আমার বাবার বয়স ৭০-এর উপরে এবং অসুস্থ। আমি যখন তার সাথে জেলে দেখা করি, তখন সে আমাকে আমার পরিবারের সাথে অবিলম্বে চলে যেতে বলে, কারণ তারা যে কোন সময় আমাদের আটক করতে পারে। পরিবারকে একে অপরের থেকে বিচ্ছিন্ন করার এই বেদনা মৃত্যুর চেয়েও খারাপ,” বলেন আরিফ।

“আমরা জানি আমরা কোথাও নিরাপদ নই। আমরা চলে গেলে আমাদের যে কোনো জায়গায় আটকে রাখা হতে পারে। আমাদের জন্য, এই নিষ্ঠুর পৃথিবীতে কোনও ন্যায়বিচার নেই, কোনও কণ্ঠস্বর নেই, কোনও নিন্দা নেই, কোনও নেতা নেই,” তিনি বলেছিলেন।

মুসলিম বিদ্বেষ

ভারতে, রোহিঙ্গারা মুসলিমরা নিরাপত্তা সংস্থার কঠোর নজরদারি, নির্বিচারে আটক, জিজ্ঞাসাবাদ এবং সমন বৃদ্ধির সম্মুখীন হচ্ছে। তারা জানান যে প্রধানত মুসলিম হওয়ায় তাদের ধর্মীয় পরিচয়ের জন্য তাদের টার্গেট করা হচ্ছে। রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে ক্র্যাকডাউন, হিন্দুত্ববাদী শাসক ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) এবং এর সাথে যুক্ত হিন্দু উগ্র গোষ্ঠীগুলির দ্বারা ভারতের মুসলমানদের বিরুদ্ধে বৃহত্তর জেনোফোবিয়া এবং ঘৃণামূলক প্রচারণার সাথে মিশেছে।

জম্মুর বিজেপির রাজনীতিবিদ অশোক কাউল বলেছে, “তারা অনেক দূর দেশ থেকে এখানে এসেছে এবং আমরা তাদের এখানে বসতি স্থাপন করতে দিতে পারি না। এটি আমাদের জন্য একটি নিরাপত্তা হুমকি।… আমরা তাদের গাড়িতে ভরে ফেরত পাঠাব। তাদের ফেরত পাঠানোর প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকবে। এ বিষয়ে আমাদের দলের অবস্থান পরিষ্কার।”

নির্বাসনের ক্রমাগত হুমকি বাস্তুচ্যুত জাতিগত সংখ্যালঘুদের একটি অনিশ্চিত ভবিষ্যত নিয়ে ফেলেছে।

মুহাম্মদ জাভেদ, ১৫, জম্মুতে এসেছিলেন যখন তিনি তিন বছর বয়সে তার বাবা-মা মিয়ানমারে নিপীড়নের শিকার হয়ে পালিয়েছিলেন। তার বাবা, একজন স্যানিটেশন কর্মী, দীর্ঘ অসুস্থতার পরে ২০১৮সালে মারা যান। কষ্টের মধ্যেও তার দশম শ্রেণির বোর্ড পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর, জাভেদ বলেছেন যে তিনি তার বয়সের অন্যান্য লোকের মতো ডাক্তার বা ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার স্বপ্ন দেখেন না। তার একমাত্র স্বপ্ন মা সাজিদা বেগমকে নিয়ে বেঁচে থাকা। আর সেটা করতে হলে তাকে জম্মু ছাড়তে হবে।

“আমি মৃত্যুকে ভয় করি না। আমি কেবল ভয় পাই যে আমাদের মধ্যে কাউকে আটক করা হলে আমি আমার মায়ের থেকে আলাদা হয়ে যেতে পারি, “জাভেদ জম্মুর নারওয়াল এলাকায় তার অস্থায়ী বাড়িতে আছেন।

জম্মুতে অনেক রোহিঙ্গা বলেছে যে জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা, ইউএনএইচসিআর-এর নিবন্ধিত হওয়া সত্ত্বেও মুসলিম হওয়ায় তাদের শরণার্থী মর্যাদা দেওয়া হচ্ছে না। ফলস্বরূপ, তারা “অবৈধ অভিবাসী” হিসাবে বিবেচিত হয় এবং আরও বাস্তুচ্যুতির সম্মুখীন হয়।

জম্মু জুড়ে কয়েক ডজন অস্থায়ী বাড়ি যেখানে রোহিঙ্গারা বছরের পর বছর ধরে বসবাস করছিলেন এখন শরণার্থীরা ভারতীয় এজেন্সিদের দমন-পীড়ন থেকে পালিয়ে যাওয়ার পরে তা খালি হয়ে পড়েছে। তাদের অনেককে তাদের সমস্ত জিনিসপত্র বিক্রি করতে হয়েছিল।

৭০ বছর বয়সী মুহাম্মদ ইসলাহ বলেছেন, তার পরিবারের ছয়জন সদস্য দমনপীড়ন থেকে পালিয়ে যাওয়ার জন্য শহর ছেড়েছেন কিন্তু তিনি তাদের অবস্থান জানেন না। “তাদের সঙ্গে আমাদের কোনো যোগাযোগ নেই। আমরা জানি না তারা কোথায় আছে এবং তারা কোনো নিরাপত্তায় পৌঁছেছে কিনা,” তিনি বলেন, “ভারতে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের রক্ষা করার এবং তাদের নিরাপদ ও স্বেচ্ছায় তাদের বাড়িতে প্রত্যাবর্তন নিশ্চিত করার জন্য আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টায় যোগ দেওয়ার পরিবর্তে, ভারতীয় হিন্দুত্ববাদী কর্তৃপক্ষ তাদের লক্ষ্যবস্তু করছে এবং তাদের আরও দুর্ভোগ সৃষ্টি করছে।”

এক্ষেত্রে হিন্দুত্ববাদী ভারত কোন আইনের তোয়াক্কা করছে না। আইন লঙ্ঘনের জাতিসঙ্ঘ বা অন্য কোন সংস্থা ভারতকে চাপ দিচ্ছে না। কোন মিডিয়া এ নিয়ে হৈচৈ করছে না। কারণ এখানে ভিকটিম হচ্ছেন মুসলিমরা।


প্রতিবেদক :  উসামা মাহমুদ


 

তথ্যসূত্র :

1. Rohingya families in Kashmir fear separation as India cracks down
https://tinyurl.com/yxehnc4p

১টি মন্তব্য

  1. আমি আল্লাহর দরবারে তাদের শান্তি ও মুক্তির কামনা করছি ।
    যেন এই নরক মোদি ও তার সা্ঙ্গপাঙ্গদের চির তরে জাহান্নামের কঠিন স্থানে পাঠায় দৈওয়াযায়

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন