২০২২: মুসলিমদের বাড়িঘরে ‘বুলডোজার চালানোর’ বছর

0
599

উগ্র হিন্দু যোগী আদিত্যনাথ এখন “বুলডোজার বাবা” হিসাবে পরিচিত। কেননা মুসলিমদের বাড়িঘরে ‘বুলডোজার চালানোর’ মত ঘৃণিত কাজটা সে-ই প্রথম চালু করেছিল।

এই কুখ্যাত ‘বুলডোজার’ ব্যবহার প্রথমত উত্তর প্রদেশে যোগী আদিত্যনাথ শুরু করে এবং অন্যান্য রাজ্যগুলিকে অনুসরণ করার জন্য এটিকে মুসলিমদের প্রতি যথাযথ পদক্ষেপ হিসেবে তুলে ধরে। পরে মধ্যপ্রদেশ, গুজরাট এবং দিল্লিও তার অনুসরণ করে। এর ফলে, ইউপি মুখ্যমন্ত্রী কুখ্যাত “বুলডোজার বাবা” উপাধি অর্জন করে।

বিগত ২০২২ সালের মধ্যে বুলডোজার চালানোর কয়েকটি উল্লেখ্যযোগ্য ঘটনা:

দিল্লী

২০ এপ্রিল, পৌর কর্তৃপক্ষ জাহাঙ্গীরপুরীতে একটি মসজিদের প্রবেশদ্বার ভেঙে দেয়। ১৬ এপ্রিল, হনুমান জয়ন্তী উপলক্ষে বজরং দলের একটি মিছিল মসজিদের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় হিন্দুরা মুসলমানদের সাথে সংঘর্ষের পর সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। হিন্দুরা অপরাধ করার পরেও সম্পূর্ণ মিডিয়া প্রোপাগান্ডায়, আদালতের নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও বুলডোজার দিয়ে মসজিদের গেটটি ভেঙে দেয়।

২শে আগস্ট, ২০২২-এ দিল্লি হাইকোর্টে শকরপুর বস্তি ইউনিয়নের পক্ষ থেকে আবেদনটি দাখিল করা হয়েছিল যে এই অঞ্চলে দিল্লি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (ডিডিএ) আধিকারিকদের কোনও পূর্ব নোটিশ ছাড়াই পরিচালিত ৩ দিনের ধ্বংস অভিযানে প্রায় ৩০০টি ভবন ভেঙ্গে দিয়েছে।

৬ জুলাই, ২০২২-এ দিল্লি ডেভেলপমেন্ট অথরিটি (ডিডিএ) নতুন দিল্লির নিজামুদ্দিন ইস্ট, সরাই কালে খানের বিপরীতে গিয়াসপুর বস্তিতে ৬০টিরও বেশি টেনিমেন্ট বুলডোজ করে। ডিডিএ এমনকি অঙ্গনওয়াড়িও ভেঙে দিয়েছে কিন্তু একটি গোশালা (গরু আশ্রয়কেন্দ্র) বাঁচিয়েছে! বাসিন্দারা বলছেন যে তাদের পরিচয় নথি রয়েছে যা তাদের পুনর্বাসনের জন্য যথাযথ ব্যবস্থা না করা পর্যন্ত তাদের বাড়িতে থাকার জন্য যোগ্য করে তোলে। যাইহোক, তাদের নথিগুলিকে ডিডিএ কর্তৃপক্ষ অপ্রাসঙ্গিক বলে মনে করেছিল যারা দাবি করেছিল যে বস্তির জমিটি তাদের বিভাগের। তাই, ২৭শে জুন দিল্লি পুলিশের সঙ্গে ডিডিএ ধ্বংসযজ্ঞ চালায়, বাসিন্দাদের কোন নোটিশ ও দেওয়া হয়নি।

উত্তর প্রদেশ

৩১শে মার্চ, ২০২২ ইউপি পুলিশ দুই মুসলিম ব্যক্তি আমির এবং আসিফের বাড়িতে বুলডোজার চালায়।

১৩ এপ্রিল, ২০২২ তারিখে রামপুর জেলা পুলিশ হত্যার অভিযুক্তের বাড়ি ভাঙার নির্দেশ দেয়। নবী ﷺ সম্পর্কে বিজেপি নেতা নূপুর শর্মার মন্তব্য নিয়ে জুন মাসে ইউপি যখন সংঘর্ষের ঘটনা দেখেছিল, তখন মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের নির্দেশ অনুসারে ইউপি প্রশাসন পদক্ষেপ নেয়। সাহরানপুরে, এসএসপি আকাশ তোমর স্বীকার করেছে যে দুই মুসলিম আবদুল ওয়াকির এবং মুজাম্মিলের সম্পত্তি ভেঙে দেওয়া হয়েছে।

১৩ জুন, প্রয়াগরাজ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ জাভেদ মোহাম্মদের (উরফে জাভেদ পাম্প) বাড়িটি ভেঙে দেয়, যাকে ১০ জুনের সহিংসতার পিছনে “মাস্টারমাইন্ড” বলে মিথ্যা প্রচারণা চালানো হয়েছিল।

১০ ডিসেম্বর, আশিক নেংগ্রুর বাড়ি, যিনি জইশ-ই-মোহাম্মদের একজন কমান্ডার বলে অভিযোগ উঠে, কলোনির পুলওয়ামায় তাঁর বাড়ি সরকারি জমিতে তৈরি বলে অভিযোগ তুলে ভেঙে দেওয়া হয়।

মধ্য​​প্রদেশ

১০ এপ্রিল, মধ্য​প্রদেশের খারগোনে রাম নবমী মিছিলের সময় পাথর নিক্ষেপ এবং অগ্নিসংযোগ হয়েছিল। যাতে প্রায় ৮০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। ইন্দোরের বিভাগীয় কমিশনার পবন শর্মা দ্য হিন্দুকে বলেছে যে সহিংসতার জন্য অভিযুক্তদের ৪৫টি বাড়ি ভেঙে ফেলা হয়েছে।

২২ শে মার্চ, মুখ্যমন্ত্রী, শিবরাজ সিং চৌহান বলেছিল ” বুলডোজার পৌছে যাবে এবং পুরোপুরি ধ্বংস না করা পর্যন্ত থামবে না।” রাইসেনে বেড়াতে গিয়ে দুই সম্প্রদায়ের মধ্যে সংঘর্ষে এক আদিবাসী যুবক মারা যায়। পরেই, চৌহান অভিযুক্ত ব্যক্তিদের বাড়ি ভেঙে দেওয়ার নির্দেশ দেয়।

একই দিনে, শেওপুরে গণধর্ষণ মামলায় অভিযুক্ত তিন মুসলিম পুরুষের বাড়ি ভেঙে ফেলা হয়। “মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান একটি নাবালিকা মেয়ের গণধর্ষণে জড়িত অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে শেওপুর প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছে। পুলিশের উপস্থিতিতে তাদের বাড়িঘর গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল।”

অক্টোবরে, গারবা প্যান্ডেলে পাথর নিক্ষেপের জন্য অভিযুক্ত ব্যক্তির বাড়ির বাইরে উচ্ছেদের নোটিশ লাগানো হয়। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সুরজানি গ্রামের বাসিন্দা আবদুল গাফ্ফার পাঠান, আবদুল রশিদ, আমজাদ পাঠান, ফয়েজ মোহাম্মদ পাঠান ও রিয়াজ পাঠানের বাড়িঘর গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়।

গুজরাট

১০ এপ্রিল, রাম নবমী মিছিলের সময় আনন্দ জেলার খাম্বাত শহরে পাথর ছোড়া হয়েছিল বলে অভিযোগ। প্রতিশোধ হিসেবে, জেলা কালেক্টর “সরকারি জমিতে অবৈধ স্থাপনা” ঘোষণা দিয়ে অভিযুক্ত ব্যক্তিদের বাড়িঘর ভেঙ্গে দেয়।

২১ এপ্রিল, সুরাট মিউনিসিপ্যাল ​​কর্পোরেশন পুলিশের নিয়ে আরিফ এবং সাজু কোঠারির সম্পত্তি গুঁড়িয়ে দেয়।

অক্টোবরে, প্রায় ১০,০০০ জনসংখ্যা সহ বেট দ্বারকা দ্বীপে প্রায় ১০০টি স্থাপনা ভেঙে ফেলা হয়েছিল এবং যার অধিকাংশই মুসলিম সম্প্রদায়ের।

এমনি ভাবে নভেম্বরে, কচ্ছ জেলার জাখাউ বন্দরে ৩০০টি বাড়ি, ভব্ন এবং গোডাউনগুলিকে ভেঙ্গে দিয়েছে হিন্দুত্ববাদী প্রশাসন। ধ্বংসের পর থেকে, জেলেরা এবং ব্যবসায়ীরা তেরপলিন এবং বাঁশের ছাদ সহ অস্থায়ী বাড়ি এবং অস্থায়ী কোল্ড স্টোরেজ স্থাপন করেছে।

আসাম

২২ মে মাসে, আসাম পুলিশ শালনাবাড়ি, হাইডুবি এবং জামতালে এই গ্রামের লোকদের আটটি বাড়ি ভেঙে দিয়েছে যাদেরকে একটি থানায় হামলা, পুলিশকে মারধর এবং হেফাজতে মৃত্যুর প্রতিবাদে গাড়িতে আগুন দেওয়ার মিথ্যে অভিযোগে অভিযুক্ত করা হয়েছিল।

১২ জুলাই, ডিব্রুগড় জেলা প্রশাসন পশু অধিকার কর্মী বিনীত বাগারিয়ার আত্মহত্যা মামলায় অভিযুক্ত বাইদুল্লাহ খানের বাড়ি ভেঙে দেয়।

জুলাই মাসে, করিমগঞ্জের পাথরকান্দি শহরে দখল বিরোধী অভিযানে ৯০টি বাড়ি ভেঙে ফেলা হয়।

সেপ্টেম্বরে, আসাম সরকার ১০০ মেগাওয়াট সোলার প্ল্যান্ট স্থাপনের জন্য ১০০০ বিঘা জমি সাফ করার নামে ২৯৯ পরিবারকে বাস্তুচ্যুত করেছে। প্রশাসন একটি মাদ্রাসা ভেঙে দিয়েছে এবং বাসিন্দাদের দুটি মসজিদ সরিয়ে দিয়েছে।

কর্ণাটকেও হিন্দু্ত্ববাদী নেতারা বুলডোজার মডেল ব্যবহার করতে সচেষ্ট হয়েছে। গত জুন মাসে বিজেপির জাতীয় সাধারণ সম্পাদক সিটি রাবি বলেছিল, যারা রাজ্যে শান্তি বিনষ্ট করবে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হবে বুলডোজার মডেল।

তো, তাদের দৃষ্টিতে শান্তি বিনষ্টকারী মূলত হালাল-হারামের ভিত্তিতে ব্যবসা করা, লাউডস্পিকারে আজান দেওয়া মুসলিমরা। হিন্দুত্ববাদীরা এনআরসি, সিএএ-সহ বিভিন্ন নামে বিভিন্ন অজুহাতে মুসলিমদেরকে দেশছাড়া করতে চায়, পর্দার বিধানসহ মুসলিমদের অন্যান্য ধর্মীয় বিধান পালনে বাধা হয়ে দাঁড়ায়; মুসলিমরা এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করলেই তারা হয়ে যায় ‘শান্তি বিনষ্টকারী’। তাই এই মুসলিমদের বিরুদ্ধেই বুলডোজার মডেল বাস্তবায়ন করছে হিন্দুত্ববাদীরা; উত্তরপ্রদেশের পরে এখন ভারতের অন্যান্য রাজ্যেও সেই চিত্রই চোখে পড়ে প্রতিনিয়ত।

এভাবে গণহারে মুসলিমদের বাড়িঘর ধ্বংস করা গণহত্যার দিকেই যাত্রা করেছে উগ্র হিন্দুত্ববাদী ভারত। অনেক আগে থেকেই জেনোসাইড ওয়াচসহ অন্যান্য সংস্থাগুলো হিন্দুত্ববাদী ভারতে মুসলিম গণহত্যার সতর্কবার্তা দিয়েছে।

 



প্রতিবেদক : উসামা মাহমুদ



তথ্যসূত্র:
1. 2022: A year of the ‘Bulldozer injustice’ ( Sabrang India )
https://tinyurl.com/2p88rcaz

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন