গো-সন্ত্রাস শুরু হয়েছে এদেশেও!

0
1453

উগ্র হিন্দুত্ববাদ, উপমহাদেশের এক বিষফোঁড়া। উগ্রবাদী মুশরিক হিন্দুরা বর্তমানে উপমহাদেশে ‘রাম রাজত্ব’ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে শুরু করেছে বিভিন্ন সন্ত্রাসী কার্যক্রম। এসকল গেরুয়া সন্ত্রাসীদের আচরণ প্রকাশ পায় কখনো গো-রক্ষার নামে, কখনো ‘জয় শ্রী রাম’ বলানোর চেষ্টায়। ভারতে তো বটেই আজ বাংলাদেশেও শুরু হয়ে গেছে মুশরিক হিন্দুদের এই গেরুয়া সন্ত্রাস, গো-সন্ত্রাস।
এই ভূমিতে মুসলিমদের অন্যতম প্রধান খাদ্য হলো গরুর গোস্ত। আল্লাহ তা’য়ালা মুসলিমদের জন্য এটি হালাল করে দিয়েছেন। কিন্তু, সন্ত্রাসবাদী গো-পূজারী মুশরিক হিন্দুরা তাদের কথিত ‘মা’ গরুকে রক্ষার নামে মুসলিমদের উপর চালাচ্ছে অবর্ণনীয় নির্যাতন। ভারতে এসকল গো-সন্ত্রাসীদের হাতে প্রায়ই মুসলিম হত্যাকাণ্ডের খবর আসে, কিন্তু এবার বাংলাদেশেও শুরু হয়েছে গো-সন্ত্রাসীদের তাণ্ডব।
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হতে জানা যায়, গত ১৪ই আগস্ট একটি ফেসবুক গ্রুপের উদ্যোগে আয়োজিত হয় কুড়িয়ানা আনন্দ ভ্রমণ। আয়োজকরা জানান, ‘‘আমরা আমাদের সব প্রস্তুতি সমাপ্ত করে কুড়িয়ানার পথে যাত্রা করি। আয়োজনে সদস্য ছিল প্রায় ১৫০+। যার মধ্যে অনেকে ছিল হিন্দু সম্প্রদায়ের। আমাদের কুড়িয়ানা প্রতিনিধি সব আয়োজন করে নিশ্চিত করে রেখেছিল আগেই। পিকনিক স্পট ছিল কুড়িয়ানা সাইক্লোন সেন্টার, যেখানে রান্না হবে গরুর গোস্ত, মুরগির গোস্ত, সবজি বা ডাল। সবজি আর মুরগী ছিল অন্য ধর্মীয় সদস্যদের বিবেচনা করে। আমাদের গাইডের সাথে সব নিশ্চিত করে আমাদের কুড়িয়ানার প্রতিনিধি বাজার সদাই করে।’’
আয়োজকদের পক্ষ থেকে এরূপ ব্যবস্থা সত্ত্বেও সেখানে বাধ সাধে কুড়িয়ানার মুশরিক চেয়ারম্যান হিন্দু শেখর। আয়োজকরা জানান, শেখর তার সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে তাদেরকে গরুর গোস্ত না পাকাতে হুমকি দেয় এবং সেখানে প্রোগ্রাম করতে দেয়া হবে না বলেও জানায়। এ নিয়ে উগ্র মুশরিক হিন্দুর সাথে আয়োজকদের কিছু বাক-বিতণ্ডা হলে, সন্ত্রাসবাদী হিন্দুরা তাদের উপর হামলা চালানোর চেষ্টা করে। পরে, বাধ্য হয়ে প্রোগ্রাম অন্যত্র স্থানান্তর করেন আয়োজকবৃন্দ।
এভাবেই মুশরিক হিন্দুরা এদেশের আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে দিচ্ছে গেরুয়া সন্ত্রাসবাদ। গো-রক্ষার নামে এদেশেও শুরু করেছে গো-সন্ত্রাস। বছর কয়েক আগে চট্টগ্রামের হালিশহর এলাকায় মুশরিক হিন্দুরা কুরবানির ঈদের সময় মুসলিমদের গরু জবাইয়ে সরাসরি বাধা দেয়। এসময় এলাকার হিন্দুরা হুমকি দেয়, গরু জবাই করা হলে মুসলিমদেরও জবাই করে দেয়া হবে। এমন পরিস্থিতিতে মুসলিমরা থামতে বাধ্য হয়। এ ব্যাপারে থানায় মামলা করা হলেও তেমন কোন ফলাফল আসেনি।
এভাবেই প্রশাসনের ছত্রছায়ায় দেশে শুরু হয়ে গেছে মুশরিক হিন্দুদের গো-সন্ত্রাস। ভারতে তাদের এই গো-সন্ত্রাসের শিকার হয়ে প্রাণ হারিয়েছেন বহু মুসলিম। বাংলাদেশের মুসলিমদের উপরও কি সেই আপদ নেমে আসছে? তা দেখার অপেক্ষাতেই দিন কাঁটছে এই অঞ্চলের মুসলিমদের!
তবে, হিন্দু সন্ত্রাসের আগ্রাসনের বিরুদ্ধে প্রতিরোধের কোন প্রস্তুতি আছে কি এ জনপদের মুসলিমদের?

 

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন