বাণিজ্য ঘাটতি ৫৬ হাজার ৭৮০ কোটি টাকা

0
78

রপ্তানি আয় কমে যাওয়ার কারণে বৈদেশিক বাণিজ্য ঘাটতিতেও প্রভাব পড়ছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, জুলাই-নভেম্বর সময়ে বাণিজ্য ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৬৬৮ কোটি ডলার বা ৫৬ হাজার ৭৮০ কোটি টাকা (১ ডলার = ৮৫ টাকা)। জুলাই-নভেম্বরে আমদানি ব্যয় কমার পরও বাণিজ্য ঘাটতি বেড়েছে। কারণ রপ্তানি আয় কমেছে আমদানি ব্যয়ের তুলনায় বেশি। বিশ্লেষকরা জানান, বাণিজ্য ঘাটতি বৃদ্ধি পাওয়া অর্থনীতির জন্য মোটেও মঙ্গলজনক নয়। এতে বিনিয়োগে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে ।

অর্থনীতিতে সংকট বাড়ছে। তথ্য বলছে, জুলাই-নভেম্বর সময়ে বাণিজ্য ঘাটতির পরিমাণ ৬৬৮ কোটি ডলার। গত বছরের একই সময়ে ঘাটতি ছিল এর চেয়ে কিছুটা কম, ৬৬৫ কোটি ২০ লাখ ডলার।

গত ২০১৮-১৯ অর্থবছরের পুরো সময়ে বাণিজ্য ঘাটতির পরিমাণ ছিল ১ হাজার ৫৪৯ কোটি ৪০ লাখ ডলার। সেবা খাতের বাণিজ্য ঘাটতি কিছুটা কমেছে। জুলাই-নভেম্বর সময়ে এ খাতের ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ১৩৬ কোটি ডলার। গত বছরের একই সময়ে ঘাটতি ছিল এর চেয়ে একটু বেশি, ১৪৪ কোটি ৪০ লাখ ডলার। মূলত বীমা, ভ্রমণ ইত্যাদি খাতের আয়-ব্যয় হিসাব করে সেবা খাতের বাণিজ্য ঘাটতি পরিমাপ করা হয়।

জুলাই-নভেম্বর সময়ে বাংলাদেশের বৈদেশিক লেনদেনের চলতি হিসাবের ভারসাম্যে (ব্যালান্স অব পেমেন্ট) ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১০৯ কোটি ৭০ লাখ ডলার। গত বছরের একই সময়ে ঘাটতির পরিমাণ ছিল ২৪২ কোটি ৫০ লাখ ডলার।

চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) এই ঘাটতি ছিল ৬৭ কোটি ৮০ লাখ ডলার। অথচ আগস্ট মাস শেষেও অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ এই সূচক ২৬ কোটি ৮০ লাখ ডলার উদ্বৃত্ত ছিল। এই ৫ মাসে সামগ্রিক লেনদেনের ভারসাম্যে ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৩০ কোটি ৭০ লাখ ডলার। গত বছরের একই সময়ে ঘাটতি ছিল আরো বেশি। ৮৩ কোটি ৭০ লাখ ডলার।

সূত্রঃ মানবজমিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন