পাক-তালিবানের পৃথক হামলায় গাদ্দার প্রশাসনের ৯ এরও বেশি সদস্য হতাহত

আলী হাসনাত

0
976
পাক-তালিবানের পৃথক হামলায় গাদ্দার প্রশাসনের ৯ এরও বেশি সদস্য হতাহত

পাকিস্তান ভিত্তিক জনপ্রিয় ইসলামি প্রতিরোধ বাহিনী টিটিপি সম্প্রতি দেশটির গাদ্দার সামরিক বাহিনীর উপর ৩টি পৃথক হামলা চালিয়েছেন। এতে কমপক্ষে ৯ গাদ্দার সদস্য হতাহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

আঞ্চলিক সূত্রমতে, প্রতিরোধ বাহিনী তেহরিক-ই-তালিবান পাকিস্তান তাদের প্রথম সফল অভিযানটি চালান গত ১৭ ফেব্রুয়ারি। যা পাকিস্তানের ডেরা ইসমাইল খান জেলায় গাদ্দার পুলিশ বাহিনীর একটি চেক পোস্ট টার্গেট করে বোমা বিস্ফোরণের মাধ্যমে চালানো হয়েছে। এতে পুলিশ চেকপোস্টটি ধ্বংস হয়ে যায়। এই হামলার মাধ্যমে মুজাহিদগণ ইসলামবিরোধী ২ চাঁদাবাজ পুলিশ সদস্যকেও হত্যা করতে সক্ষম হন।

এরপর গত ১৮ ফেব্রুয়ারি উত্তর ওয়াজিরিস্তানের বোবলি এলাকায় দেশটির গাদ্দার এফসি ফোর্সের একটি কনভয় টার্গেট করে বোমা হামলা চালান মুজাহিদগণ। উক্ত বোমা বিস্ফোরণে এফসি ফোর্সের ৩ সদস্য নিহত ও আহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

সর্বশেষ আজ ১৯ ফেব্রুয়ারি রাতে পেশোয়ারে একটি পুলিশ পোস্ট টার্গেট করে সফল আক্রমণ চালিয়েছেন মুজাহিদগণ। যেখানে ইসলাম বিরোধী পেশোয়ার পুলিশ বাহিনীর উক্ত পোস্টে মুজাহিদগণ বেশ কয়েকটি হাতবোমা নিক্ষেপ করেন৷ ফলে উক্ত হ্যান্ড গ্রেনেডগুলোর বিস্ফোরণে অন্তত ৪ পুলিশ সদস্য নিহত হয় এবং আরও বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হয়।

এদিকে সফলভাবে আক্রমণটি চালানোর পর নিরাপদে মুজাহিদগণ তাদের নিরাপদ আশ্রয়ে পৌঁছে যান, আলহামদুলিল্লাহ্।

বিশ্লেষকরা তাই বলছেন, সীমান্তের অপর পার থেকে ইসলামি ইমারত আফগানিস্তানের সাথে সীমান্ত নিয়ে প্রায়শই উত্তেজনে, আর সীমান্তের এই পারে টিটিপি মুজাহিদিনের লাগাতার হামলা – সব মিলিয়ে গাদ্দার পাকি সেনাবাহিনী ও প্রশাসন প্রবল চাপেই রয়েছে।

আর হক্কানি আলেমগণের মতে, উম্মাহর সাথে পাকি আর্মি ও প্রসাসনের কৃত গাদ্দারির দীর্ঘ যে ইতিহাস, খুব শীঘ্রই হয়তো তাদের কাছ থেকে এর হিসাব করায়-গন্ডায় আদায় করে নিবেন উম্মাহর বীর সন্তান মুজাহিদগণ।

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন