চতুর্মুখী সংকটে আরাকানী মুসলিমগণ; হতাহত, গ্রেপ্তার বাড়ছে

0
850
রাখাইনের আহ লেল থান খউ গ্রামের ধ্বংসাবশেষের উপর দাঁড়িয়ে আছে এক বার্মিজ পুলিশ। ফাইল ছবি: এসোসিয়েটেড প্রেস (AP)।
সুবিধামত ফন্ট ছোট বড় করুনঃ

আরাকানে রোহিঙ্গা মুসলিমদের সঙ্গে সন্ত্রাসী মিয়ানমারের নৃশংসতা প্রতিনিয়ত বাড়ছে। মিয়ানমারের বর্বর জান্তা বাহিনী ও সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আরাকান আর্মির সহিংসতার বলী হচ্ছে সাধারণ মুসলিমরা। অনবরত রোহিঙ্গা গ্রামগুলোকে টার্গেট করে হামলা চালানো হচ্ছে। ফলে প্রতিদিনই মুসলিমদের হতাহতের খবর পাওয়া যাচ্ছে।

গত সপ্তাহে সামরিক জান্তা ও মিয়ানমার আর্মির হামলায় কমপক্ষে ৫ জন রোহিঙ্গা মুসলিম নিহত হয়েছেন। নৃশংস এসব হামলায় গুরুতর আহত হয়েছেন আরও ৮ জন মুসলিম। আহতদের অবস্থা বেশ সংকটাপন্ন। এসকল হামলায় কয়েকজনের হাত পা বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।

হাত বিচ্ছিন্ন হয়ে গুরুতর আহত এক রোহিঙ্গা মুসলিম। ছবি: টুইটার। 

স্থানীয় সূত্র মতে, ১ নভেম্বর রাতে মিয়ানমার সামরিক জান্তা ও সন্ত্রাসী আরাকান আর্মি ভারী আর্টিলারি দিয়ে কিয়াউক তাও টাউনশিপের একটি মুসলিম গ্রামে আক্রমণ করে। এতে একই পরিবারের তিন সদস্য নিহত হয়।

নিহত এক রোহিঙ্গা মুসলিম। ছবি: টুইটার।

একইভাবে ৪ নভেম্বর, কিয়াউক তাও টাউনশিপের লেট সাং কাউক ও ওহন মাতি গ্রামের ওপর আর্টিলারি শেল নিক্ষেপ করে সামরিক বাহিনী এবং আরাকান আর্মি। এ হামলায় ৫ বছর বয়সী এক শিশু ও নারীসহ পাঁচজন রোহিঙ্গা মুসলিম গুরুতর আহত হয়েছেন।

এছাড়াও ৫ নভেম্বর তায়েট কিন মানউ গ্রামে হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। এ হামলায় আবুল নাসের নামে একজন রোহিঙ্গা শিক্ষক নিহত ও আরও ২ জন গুরুতর আহত হয়েছেন।

নিহত আবুল নাসের মাস্টার। ছবি: টুইটার।

ক্রমাগত বৃদ্ধি পাওয়া এসব হামলায় মুসলিমরা আজ চতুর্মুখী সংকটের সম্মুখীন। জীবন বাঁচানোর জন্য অনেক মুসলিম এলাকা ছেড়ে পালাতে শুরু করেছেন। কিন্তু সন্ত্রাসী মিয়ানমার জান্তা নিরীহ মুসলিমদেরকে নিরাপদ জায়গায় যেতে দিচ্ছে না। গোপনে পালাতে গিয়ে সন্ত্রাসী সামরিক বাহিনীর হাতে বন্দী হয়েছেন অনেক মুসলিম।

এছাড়া, মিয়ানমারের কিছু মানব পাচারকারী দালাল মুসলিমদের অসহায়ত্বের সুজোগে তাদের কাছ থেকে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে। মালয়েশিয়ায় পৌঁছে দেয়ায় কথা বলে সুজোগ বুঝে অর্থ নিয়ে পালিয়ে যাচ্ছে সঙ্ঘবদ্ধ দালালরা।

গত ৬ নভেম্বর, এরকম মালয়েশিয়াগামী ৮৫ রোহিঙ্গাকে গ্রেপ্তার করেছে মিয়ানমার জান্তা বাহিনী। আর জান্তার নিকট গ্রেপ্তার হওয়া মানে নতুন এক ট্রাজেডি। জান্তা বাহিনী সাধারণত রোহিঙ্গা মুসলিমদেরকে কঠোর শ্রম দিয়ে দীর্ঘমেয়াদী সাজা প্রদান করে থাকে।

আটক রোহিঙ্গা মুসলিমদের একাংশ। ছবি: টুইটার।

সাধারণত কোন দেশে যুদ্ধ পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে নাগরিকদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয় সরকার। কিন্তু মুসলিম বিদ্বেষী মিয়ানমার সরকার পুরো রোহিঙ্গা মুসলিম জাতিকেই নিশ্চিহ্ন করতে চাচ্ছে। তাই তাদেরকে জীবন নিয়ে পালাতেও দিচ্ছে না।

এমন সুস্পষ্ট মানবাধিকার লঙ্ঘনের প্রমাণ থাকা সত্ত্বেও পুরো বিশ্ব এক প্রকার নির্বিকার ভূমিকা পালন করছে। কারণ রোহিঙ্গারা মুসলিম। এদিকে, মুসলিম বিদ্বেষী ভারত ও চীন সরকার বরং মিয়ানমার সামরিক জান্তাকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সহায়তা করছে।

আর রোহিঙ্গা মুসলিমদের এমন সংকটময় মুহূর্তে বিশ্বের নামধারী মুসলিম শাসকরা কানা, বোবা, বধির ও পংগু সেজে বসে আছে। সুতরাং, কারও অপেক্ষায় না থেকে মুসলিম উম্মাহকে আজ ঐক্যবদ্ধ্য হতে হবে। রুখে দাঁড়াতে হবে সকল অন্যায়, অত্যাচার ও জুলুমের বিরুদ্ধে।


তথ্যসূত্র:

——

১। Another day, another terrible news:On Saturday (Nov 5th) morning, Arakan Army fired heavy weapons into Junta’s Operations Command Headquarters (15) based in Rakhine State’s Buthidaung Township – https://tinyurl.com/yzze9pkv

২। Kyauk Taw based Burmese Military Council camp Sa Ka Kha (9) attack residential villages with heavy artillery at night which killed three member of a family in Kyauk Taw Township – https://tinyurl.com/57hbvbdt

৩। Two Rohingya Were Injured in Confliction of Junta and Terrorist group AA Arakan army – https://tinyurl.com/22v3zws5

৪। 85 Rohingya Arrested – https://tinyurl.com/2pushk43


লেখকঃ মুহাম্মাদ ইব্রাহীম

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন

পূর্ববর্তী নিবন্ধযিয়ারতের জন্য উন্মুক্ত হলো আমিরুল মু’মিনিন মোল্লা ওমরের কবর
পরবর্তী নিবন্ধফটো রিপোর্ট || সিরিয়া থেকে নতুন ভিডিও প্রকাশ করলো আনসার আল-ইসলাম