ফিলিস্তিনের জিহাদ || আপডেট – ১৪ মে, ২০২৪

0
138

গত ২৪ ঘণ্টায় অন্তত ৮২ জন ফিলিস্তিনিকে হত্যা করেছে জায়োনিস্ট ইসরায়েল।

সাড়ে ৪ লাখের বেশি ফিলিস্তিনি রাফা শহর ত্যাগ করেছেন।

গাজায় জায়োনিস্ট ইসরায়েলের হামলায় এখন পর্যন্ত নিহত হয়েছেন অন্তত ৩৫,১৭৩ জন ফিলিস্তিনি।

গাজার বুরেইজ শরণার্থী শিবিরে ইসরায়েলি হামলায় ৫ জন নিহত হয়েছেন।

জাতিসংঘের ফিলিস্তিনি শরণার্থী বিষয়ক সংস্থার পরিচালিত ক্লিনিকে দখলদার ইসরায়েলি হামলায় নিহত হয়েছেন অন্তত ১০ জন বাস্তুচ্যুত ফিলিস্তিনি।

বাইডেন প্রশাসন কংগ্রেসে বলেছে যে, তারা আরও ১ বিলিয়ন ডলারের সামরিক সহায়তা প্যাকেজ ইসরায়েলে পাঠাতে চায়!

দখলীকৃত পশ্চিম তীরের তুলকারেমে ১৫ বছর বয়সী দুই বালকসহ ৩ জন ফিলিস্তিনিকে গ্রেফতার করেছে জায়োনিস্ট ইসরায়েল।

দখলদার ইসরায়েলিরা আরও একবার পূর্ব জেরুজালেমে ফিলিস্তিনি শরণার্থী বিষয়ক জাতিসংঘের সংস্থার হেডকোয়ার্টারে হামলা চালিয়েছে।

১৪ই মে দখলদার ইসরায়েলি বাহিনীর উপর বেশ কয়েকটি হামলা চালিয়েছেন আল-কাসসাম ব্রিগেড। হামলাগুলোর সংক্ষিপ্ত বিবরণ নিচে উল্লেখ করা হলো-

রাফা শহরের পূর্বে আস-সালাম পাড়া এলাকায় দুটি শাওয়াজ বিস্ফোরক ডিভাইস দিয়ে একটি জায়োনিস্ট সৈন্য বাহী গাড়ি এবং আরেকটি ট্যাংকে হামলা চালিয়েছেন।

রাফা স্থল ক্রসিংয়ের ভেতরে অবস্থান নেওয়া জায়োনিস্ট বাহিনীর উপর মর্টারশেল হামলা করেছেন।

রাফার পূর্বে আস-সালাম পাড়ায় একটি জায়োনিস্ট সৈন্যবাহী গাড়িতে ইয়াসিন ১০৫ দিয়ে হামলা চালিয়েছেন। এতে শত্রু সৈন্যরা হতাহত হওয়ায় জায়োনিস্ট হেলিকপ্টার তাদেরকে উদ্ধার করে নিয়ে গেছে।

রাফা স্থল ক্রসিংয়ের উপকণ্ঠে একটি জায়োনিস্ট মারকাভা ট্যাংকে ইয়াসিন ১০৫ দিয়ে হামলা চালিয়েছেন।

আশকালানে জায়োনিস্ট বাহিনীর উপর মিসাইল হামলা চালিয়েছেন।

রাফার পূর্বে জর্জ স্ট্রিটে জায়োনিস্ট বাহিনীর একদল স্পেশাল সৈন্য একটি বাড়িতে অবস্থান নিয়েছিল। তাদেরকে ববি-ট্র্যাপ হামলার শিকার বানিয়েছেন আল-কাসসাম ব্রিগেড। এতে শত্রুসৈন্যরা হতাহত হয়েছে।

রাফার পূর্বে আল-তাবায়িন মসজিদের পেছনে ইয়াসিন ১০৫ দিয়ে একটি মারকাভা ট্যাংকে হামলা চালিয়েছেন।

উত্তর গাজার জাবালিয়া ক্যাম্পে আবুল আইশ স্ট্রিটে দুটি মারকাভা ট্যাংকে দুটি ইয়াসিন ১০৫ দিয়ে হামলা চালিয়েছেন আল-কাসসাম ব্রিগেড।

জাবালিয়া ক্যাম্পের আবু জাতুন এলাকায় ইয়াসিন ১০৫ দিয়ে একটি ডি৯ সামরিক বুলডোজারে হামলা চালিয়েছেন।

রাফার পূর্বে আল-কুদুস স্টেশনের উপকণ্ঠে জায়োনিস্ট বাহিনীর একদল ইঞ্জিনিয়ারিং সৈন্য একটি টানেল আইয়ে প্রবেশ করার চেষ্টা করছিল। আল-কাসসাম মুজাহিদিন সেখানে ববি-ট্র্যাপ বিস্ফোরণ ঘটিয়ে জায়োনিস্ট সৈন্যদের হতাহত করেছেন।

উত্তর গাজার জাবালিয়া ক্যাম্পের পূর্বে ইয়াসিন-১০৫ দিয়ে একটি জায়োনিস্ট মারকাভা ট্যাংক এবং আরেকটি সৈন্যবাহী গাড়িতে আক্রমণ করেছেন।

উত্তর গাজার জাবালিয়া ক্যাম্পের পূর্বে একটি ডি৯ বুলডোজারে শাওয়াজ ডিভাইস দিয়ে হামলা চালিয়েছেন।

উত্তরপূর্বাঞ্চলে জায়োনিস্ট বাহিনীর অবস্থানে মর্টারশেল হামলা চালিয়েছেন।

জাবালিয়া শহরের পূর্বে আগ্রাসী এক জায়োনিস্ট সৈন্যকে স্নাইপিং করেছেন আল-কাসসাম ব্রিগেড। এতে শত্রুসৈন্য সরাসরি গুলিবিদ্ধ হয়েছে।

উত্তর গাজার জাবালিয়া ক্যাম্পের পূর্বে একটি মারকাভা ট্যাংকে ইয়াসিন ১০৫ দিয়ে হামলা চালানো হয়। এতে ট্যাংকে অবস্থান করা শত্রুসৈন্যরা হতাহত হয়েছে। এরপর শূন্য দূরত্ব থেকে জায়োনিস্ট গাড়ির পেছনে থাকা ৭ জায়োনিস্ট সৈন্যকে হত্যা করেছেন আল-কাসসাম মুজাহিদিন।

জাবালিয়ার পূর্বে নিউ ইন্টারিয়র স্ট্রিটে অনুপ্রবেশকারী একটি মারকাভা ৪ জায়োনিস্ট ট্যাংকে ইয়াসিন ১০৫ দিয়ে হামলা করেছেন ।

রাফার পূর্বে হারুন মসজিদের উপকণ্ঠে জায়োনিস্ট বাহিনীর একটি ডি৯ বুলডোজারে ইয়াসিন ১০৫ দিয়ে হামলা করেছেন আল-কাসসাম ব্রিগেড। এতে বুলডোজারে আগুন ধরে যায়। এই রিপোর্ট প্রকাশ হওয়া পর্যন্ত আগুন জ্বলতেই দেখা যায় সেখানে।

উত্তর গাজার জাবালিয়া শহরের পূর্বে অনুপ্রবেশকারী জায়োনিস্ট গাড়িতে মর্টারশেল হামলা চালিয়েছেন।

জাবালিয়ার উত্তরপূর্বে একটি মারকাভা ট্যাংকে ইয়াসিন ১০৫ দিয়ে হামলা করেছেন।

জাবালিয়ার পূর্বে শত্রুদের অবস্থানে মর্টারশেল হামলা করেছেন।

রাফার দক্ষিণপূর্বে রাফা স্থল ক্রসিংয়ের ভেতরে অবস্থান নেওয়া জায়োনিস্ট সৈন্যদের উপর মর্টারশেল নিক্ষেপ করেছেন।

ওয়াদি গাজা ব্রিজের কাছে আগ্রাসী জায়োনিস্ট বাহিনীর উপর মর্টারশেল হামলা করেছেন।

উত্তর গাজার জাবালিয়া ক্যাম্প স্কুল স্ট্রিটের শেষপ্রান্তে একটি জটিল হামলা করেছেন আল-কাসসাম মুজাহিদিন। এসময় তারা একটি বাড়িতে অবস্থান নেওয়া জায়োনিস্ট সৈন্যদেরকে একটি অ্যান্টি-পার্সনেল মিসাইল দিয়ে হামলা করেন। তৎক্ষণাৎ জায়োনিস্ট সৈন্যরা বাড়ির নিচ থেকে সরে গেলে, তাদেরকে থান্ডার অ্যান্টি পার্সনেল ডিভাইস দিয়ে আক্রমণ করেন আল-কাসসাম ব্রিগেড। এতে শত্রুসৈন্যরা হতাহত হয়েছে। এর কিছুক্ষণ পর একদল জায়োনিস্ট বাহিনী অগ্রসর হতে থাকে। এসময় আল-কাসসাম মুজাহিদিন বাড়িটির দিকে এগিয়ে গিয়ে বাড়ির প্রবেশমুখে একটি অ্যান্টি পার্সনেল ডিভাইস বিস্ফোরিত করেন। সেখানে আরও কয়েক শত্রু সৈন্য হতাহত হয়েছে। এরপর যখন সেখানে একটি জায়োনিস্ট সামরিক যান শত্রুসৈন্যদের উদ্ধারে এগিয়ে আসে, তখন মুজাহিদগণ সেই মারকাভা ট্যাংকে ইয়াসিন ১০৫ দিয়ে হামলা করেন। এরপর আরেকটি মারকাভা ট্যাংকে শক ডিভাইস দিয়ে হামলা চালিয়ে সেটিকে উড়িয়ে দেন।

উত্তর গাজার জাবালিয়া শরণার্থী শিবিরের পশ্চিমে একটি জায়োনিস্ট ড্রোনকে জব্দ করেছেন আল-কাসসাম মুজাহিদিন।

গাজা শহরের দক্ষিণে জায়তুন পাড়ায় শাফুত জংশনের কাছে জায়োনিস্ট বাহিনীর একটি মারকাভা ট্যাংকে দুটি বর্মবিধ্বংসী গোলা দিয়ে যৌথ হামলা চালান আল-কাসসাম ব্রিগেড এবং আল-কুদুস ব্রিগেড।

গাজা শহরের জায়তুন পাড়ায় অনুপ্রবেশকারী জায়োনিস্ট সৈন্যদের উপর মর্টারশেল হামলা চালিয়েছেন।

নেতজারিমে শত্রুদের কমান্ড হেডকোয়ার্টারে মর্টারশেল হামলা চালিয়েছেন।

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন

পূর্ববর্তী নিবন্ধ২৪৪টি অবকাঠামো ও ৮টি বাঁধ নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে ইমারতে ইসলামিয়া আফগানিস্তান
পরবর্তী নিবন্ধমিয়ানমারে সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে বাধ্য করা হচ্ছে রোহিঙ্গাদের