মুসলিম অধ্যাপকের এফআইআর বাতিলে অস্বীকৃতি : অপরাধ কাশ্মীরের বাস্তব চিত্র উন্মোচন করা

ওবায়দুল ইসলাম

0
448

কাশ্মীরের হিন্দুত্ববাদী হাইকোর্ট সম্প্রতি একটি সরকারি কলেজে কর্মরত সহকারী অধ্যাপক আব্দুল বারি নায়েকের বিরুদ্ধে দায়ের করা এফআইআর বাতিল করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। জনাব নায়েকের উপর দখলদার সেনাবাহিনী ও পুলিশ বাহিনীর বিরুদ্ধে সাধারণ কাশ্মীরি মুসলিমদের উদ্বুদ্ধ করার অভিযোগ আছে।

হিন্দুত্ববাদী আদালত উল্লেখ করেছে, তদন্তকারী সংস্থার রিপোর্ট অনুযায়ী অধ্যাপক নায়েক কাশ্মীরকে স্বাধীন করতে সাধারণ কাশ্মীরি মুসলিমদের অনুপ্রাণিত করেছেন। এবং দখলদার পুলিশ ও কথিত নিরাপত্তা বাহিনীর পাশাপাশি জেলা প্রশাসনের বিরুদ্ধেও মুসলিমদের রুখে দাঁড়াতে আহ্বান জানিয়েছেন।

আদালত অধ্যাপক নায়েকের ভিডিও ক্লিপগুলি পর্যবেক্ষণ করে উল্লেখ করেছে যে প্রাথমিকভাবে তিনি কাশ্মীরে বসবাসকারী মানুষ এবং দেশের অন্যান্য অংশে বসবাসকারী মানুষদের মধ্যে শত্রুতা বাড়ানোর চেষ্টা করেছেন।

মামলার তদন্তের সময় পুলিশের জব্দ করা ভিডিও ক্লিপগুলোতে দেখে গিয়েছে, জনাব নায়েক দর্শকদের বার্তা দিচ্ছেন যে, দেশের অন্যান্য স্থানে কাশ্মীরি মুসলিম শিক্ষার্থীদের হত্যা ও নির্মমভাবে নির্যাতন করা হচ্ছে। একটি ভিডিও ক্লিপে জনাব নায়েক দখলদার নিরাপত্তা বাহিনী এবং সেনাবাহিনীর কর্তৃক কাশ্মীরের শিশুদের নির্যাতিত হওয়ার বিষয়ে বলেছেন। অপর একটি ভিডিও ক্লিপে তিনি দখলদার সেনাবাহিনী কর্তৃক মুসলিম জনগণের চলাচলে বাধা সৃষ্টি এবং শিশুদের স্কুলে যেতে বাধা দেওয়ার বিষয়ে উল্লেখ করেছেন। অন্য আরেকটি ভিডিও ক্লিপে জনাব নায়েককে দখলদার পুলিশি হেফাজতে থাকা একজন মুসলিমের মুক্তির ব্যপারে যুক্তি দিতে দেখা যায়, যাকে হিন্দুত্ববাদী বাহিনী পাথর ছোঁড়া এবং কথিত সন্ত্রাসবাদ কার্যকলাপে জড়িত থাকার অভিযোগে বন্দী করে।

যদিও জনাব নায়েক কাশ্মীরের স্বাধীনতা নিয়ে কোন বাক্য উচ্চারণ করেননি, তিনি শুধু ভারতীয় বাহিনীর জুলুম-নির্যাতনের বাস্তব চিত্রগুলো তুলে ধরেছেন, তবুও তার এতটুকু প্রতিবাদ সহ্য করতে পারেনি হিন্দুত্ববাদীরা। তাঁকে জামিন পর্যন্ত দিচ্ছে না হিন্দুত্ববাদী আদালত।

অধ্যাপক নায়েকের উকিল বলেছেন যে, তিনি একজন বুদ্ধিজীবী এবং সমাজের দুর্নীতির বিরুদ্ধে তিনি তাঁর ভিডিওগুলোতে কথা বলেন। তিনি যেই কাজ করেছেন সেটি কোনমতেই অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের আওতায় পড়ে না।

৪১ বছর বয়সী নায়েককে গত বছরের ৭ই মার্চ গ্রেফতার করা হয়। নায়েকের পরিবার দাবি যে নায়েককে তাঁর জনচেতনতা মূলক কর্মকাণ্ডের জন্য গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁরা আরও বলেন, জনাব নায়েক হিন্দুত্ববাদী সরকারের দুর্নীতির পাশাপাশি কাশ্মীরের বিভিন্ন গ্রামে দখলদার ভারতীয় সেনাবাহিনীর মুসলিমদের জমি দখলের বিষয়টি তাঁর ভিডিওতে প্রকাশ করেছেন।

উলামাগণ বলছেন, কাশ্মীরি মুসলিমদেরকে বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন করতে এবং সেখানে নিজেদের অপরাধকর্ম ঢাকতে হিন্দুত্ববাদী ভারতের ক্ষমতাসীন সরকার অনেকটা চীনের উইঘুর নির্যাতনের নীতি আর ইসরাইলের ফিলিস্তিন দখলের নীতি অনুসরণ করছে। তাই উম্মাহর উচিত কাশ্মীরের পক্ষে আওয়াজ তোলা এবং যার যার সামর্থ্য অনুযায়ী কাশ্মীরের স্বাধীনতাকামীদের সাহায্যে এগিয়ে আসা।



তথ্যসূত্র:
———
1. Court refuses to quash UAPA against professor, says he spoke against oppression in Kashmir
https://tinyurl.com/zpak638c

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য করুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন